কম ওজন যেমন সমস্যা তেমনি অতিরিক্ত ও বিপদজনক। তবে বাড়তি ওজন শুধু আপনার সৌন্দর্যকেই নষ্ট করে না বরং বিভিন্ন রোগের আশঙ্কাকেও বাড়িয়ে দেয়।

এদিকে খাওয়াও কমিয়ে দিয়েছেন আবার নিয়মিত ব্যায়াম করছেন।

তবু ওজন কমছে না। তাহলে গোলমালটা কোথায়? ব্যাপারটা বুঝতে পারছেন না তো। এতসবের পরেও ওজনের কাঁটা কেন নিম্নগামী হচ্ছে না।

অতিরিক্ত ওজনের কারণেই অনেক সময় শরীরে অধিক রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

তাহলে চলুন জেনে নেয়া যাক কীভাবে আপনার ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখবেন।

# ফাইবার জতীয় খাবার খান। মটরশুঁটি জাতীয় খাবারে রয়েছে প্রোটিন ও ফাইবার, যা ওজন হ্রাসে বিশেষ ভূমিকা রাখে।

# ওজন কমাতে চাইলে ফলের রস খাবেন না। কারণ ফলের রসে আছে পুষ্টি উপাদান যা ফাইবারকে তার কাজ করতে বাধা দেয়।

# প্রোটিন-সমৃদ্ধ খাবার আপনার খাদ্য তালিকায় রাখুন। দুধ, ডিম, মুরগির মাংস ও ডালে প্রোটিন রয়েছে। কিন্তু তা হিসাব মতো খাবেন।

# ওজন কমাতে হলে সবজির কোনো বিকল্প নেই। ভাতের চেয়ে সবজি বেশি খাবেন।

# আপনার শরীরে যেটুকু ক্যালরি দরকার তা গ্রহণের জন্য পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন।

# একসঙ্গে বেশি খাবার নয়। অল্প করে ৬ বেলা খান।

# ফাস্টফুড, কোমল পানীয়, সোডা— এই খাবারগুলোতে উচ্চ পরিমাণ ক্যালরি থাকে, এতে ওজন বাড়ে। তাই এসব খাবার থেকে সাবধান থাকুন।

# নিদ্রাহীনতা ও অতিরিক্ত নিদ্রা ওজন বৃদ্ধির জন্য প্রধানত দায়ী। আপনি যদি ওজন হ্রাস করতে চান, তবে আপনাকে সময়মতো ঘুমাতে হবে।

# খাবার পরিমাণ মতো খান। ইচ্ছায় হোক অনিচ্ছায়, বেশি খাওয়া যাবে না।

# যেসব খাবারে চর্বি রয়েছে তা একবারেই কমিয়ে দিন। যেমন গরু ও খাসির মাংস, চিংড়ি।

# ভারি খাবারের আগে স্যুপ অথবা সাধারণ সালাদ খান।

# পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করলে শরীর আর্দ্র থাকে, এতে আপনার ক্ষুধাও কম লাগবে। দিনে অন্তত ১০ থেকে ১২ গ্লাস পানি পান করুন।

# ওজন কমাতে হাঁটার কোনো বিকল্প নেই। আর হাঁটা তো কেবল ওজনই কমাবে না, কমাবে হৃদরোগের ঝুঁকিও। দৈনিক ৩০ মিনিট ব্যায়াম করুন।

# চিনি বা মিষ্টিজাতীয় খাবার এবং ভাত, রুটি কম খান। এসব খাবার কম খেলে ওজন দ্রুত কমবে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here