পদ্মা সেতু খুলে দেয়ার প্রথম দিনেই ট্রেন চলাচল শুরু করতে আশাবাদী রেল মন্ত্রণালয়। মন্ত্রী মুজিবুল হক বলছেন, ঋণ সহায়তা পাওয়ার জটিলতা কেটে গেছে। অর্থায়নকারী চীনা ব্যাংকের সঙ্গে চুক্তি হবে এ মাসেই। আর প্রকল্প বাস্তবায়নের কাজ শুরু হচ্ছে দুই মাসের মধ্যে।

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিম অঞ্চলে রেল নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে গতবছর প্রকল্প প্রস্তাব পাশ হয় একনেকে। এর আওতায় কমলাপুর রেল স্টেশন থেকে পদ্মা সেতুর ওপর দিয়ে যশোর পর্যন্ত ১৭২ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণের কথা রয়েছে।

আগামী বছরের ডিসেম্বরে পদ্মা সেতু খুলে দেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে সরকারের। প্রথম দিনেই সেতু দিয়ে ট্রেনও চালু করতে চায় সরকার। তবে বিভিন্ন জটিলতায় এতদিনেও আসেনি চীনা অর্থায়ন। রেলমন্ত্রী বলছেন, ঋণ পাওয়ার প্রক্রিয়া এখন চূড়ান্ত পর্যায়ে।

পদ্মা সেতু রেল সংযোগ প্রকল্প বাস্তবায়নে ব্যয় হবে ৩৪ হাজার ৯৮৮ কোটি টাকা। দুই শতাংশ সুদে ২৪ হাজার ৭৪৯ কোটি টাকা অর্থায়ন করছে চাইনিজ এক্সিম ব্যাংক। চুক্তির পরপরই রেলপথ নির্মাণের কাজ শুরুতে আশাবাদী মন্ত্রী।

প্রকল্প বাস্তবায়নে ভূমি অধিগ্রহণ ও পুর্নবাসনের কাজ অনেকটাই এগিয়েছে বলে জানান রেলপথমন্ত্রী। রেলপথ নির্মাণে পরামর্শক হিসেবে কাজ করছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here