বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া পাঁচ লাখ রোহিঙ্গার জন্য ৪৩ কোটি ডলার প্রয়োজন। জাতিসংঘ দেবে এক কোটি ২০ লাখ ডলার। দাতাদের কাছ থেকে বাকি অর্থ সংগ্রহে সরকারকে উদ্যোগী হতে হবে বলে মনে করেন জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি মার্ক লকক। মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলনে ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক এন্থনি লেক বলেন, মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো নির্যাতন ভয়াবহ।

কক্সবাজারে মঙ্গলবার রোহিঙ্গাদের বিভিন্ন ক্যাম্প পরিদর্শন করেন জাতিসংঘ ও ইউনিসেফের দুই প্রতিনিধি। এসময় রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানোয় বাংলাদেশের প্রশংসা করেন জাতিসংঘের প্রতিনিধি।

জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি ও ইমার্জেন্সি রিলিফ কোঅর্ডিনেটর মার্ক লকক, রোহিঙ্গা পরিস্থিতি মোকাবেলায় বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের মানবিক অবস্থানের সম্মান জানাই। এটি বিশ্ববাসীর জন্য অনুপ্রেরণা।

বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গাদের জন্য জাতিসংঘের তহবিল থেকে ১২ মিলিয়ন ডলার আর্থিক সহায়তা দেয়া হবে বলে জানান মার্ক লুউকুক। তবে পর্যাপ্ত ত্রাণের জন্য আরো প্রয়োজনীয় অর্থ সংগ্রহে বাংলাদেশকে উদ্যোগ নেয়ার আহ্বান জানান তিনি।

জাতিসংঘের আন্ডার সেক্রেটারি ও ইমার্জেন্সি রিলিফ কোঅর্ডিনেটর মার্ক লকক, রোহিঙ্গাদের পর্যাপ্ত ত্রাণ যোগাতে ৪শো ৩০ মিলিয়ন ডলার প্রয়োজন বাংলাদেশের। আর এর জন্য বাংলাদেশকেই আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর কাছে যেতে হবে।

এসময় মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর চালানো নির্যাতন ভয়াবহ উল্লেখ করে ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক এন্থনি লেক জানান শিশুদের মনে এর মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

ইউনিসেফের নির্বাহী পরিচালক এন্থনি লেক বলেন, আশ্রয় নেয়া রোহিঙ্গা শিশুদের আঁকা ছবিতে ভয়াবহ অভিজ্ঞতার প্রতিফলন দেখেছি। তারা যা দেখেছে তা কোন শিশুরই দেখার কথা না। এই ছবিটি একটি ছোট মেয়ের আঁকা এখানে দেখা যাচ্ছে হেলিকপ্টার থেকে গুলি ছোঁড়া হচ্ছে তাদের বাড়ি পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। এটা মানবিক সংকট।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here