রাশিয়া দাবি করেছে, সৌদি আরবের সঙ্গে দেশটির সামরিক সহযোগিতা তৃতীয় কোনো দেশের জন্য হুমকি সৃষ্টি করবে না। সৌদি রাজা সালমানের চলমান মস্কো সফর এবং প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে তার সাক্ষাতের জের ধরে একথা ঘোষণা করল রাশিয়া।

সৌদি রাজা সালমান গত বুধবার চারদিনের সফরে মস্কো পৌঁছান। এটি সৌদি আরবের কোনো রাজার প্রথম রাশিয়া সফর। তিনি বৃহস্পতিবার ক্রেমলিনে ভ্লাদিমির পুতিনের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। সাক্ষাতে রাশিয়ার কাছ থেকে সমরাস্ত্র ক্রয়, আন্তর্জাতিক তেলের বাজার স্থিতিশীল রাখা এবং সিরিয়ার চলমান সংঘাত নিয়ে আলোচনা হয়।

রুশ প্রেসিডেন্টের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ এ সম্পর্কে বলেছেন, “রাশিয়া ও সৌদি আরবের মধ্যে চলমান সামরিক সহযোগিতা তৃতীয় কোনো পক্ষের প্রতি সরাসরি হুমকি নয় এবং এ ব্যাপারে উদ্বেগ প্রকাশের কোনো ভিত্তি নেই বলে মস্কো মনে করে।” দু’দেশের মধ্যে সামরিক সহযোগিতা অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।

বৃহস্পতিবার গণমাধ্যমে এ খবর প্রকাশিত হয় যে, রাশিয়ার সমরাস্ত্র রপ্তানিকারক রাষ্ট্রীয় সংস্থা ‘রোসোবোরোনএক্সপোর্ট’ এবং সৌদি আরবের রাষ্ট্রীয় সামরিক শিল্প সংস্থা রুশ অস্ত্র কেনার ব্যাপারে একটি সমঝোতা স্মারক সই করেছে। রাশিয়ার উপ-প্রধানমন্ত্রী দিমিত্রি রোগোজিন সাংবাদিকদের বলেছেন, তার দেশ থেকে অত্যাধুনিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এস-৪০০ কিনতে চায় সৌদির আরব। তবে এ বিষয়টি এখনো চূড়ান্ত হয়নি।

রাশিয়ার কাছ থেকে সৌদি আরবের সমরাস্ত্র কেনার খবর এমন সময় প্রকাশিত হলো যখন আমেরিকার কাছ থেকে হাজার হাজার কোটি ডলারের অস্ত্র কিনছে রিয়াদ। শুক্রবারই মার্কিন প্রশাসন সৌদি আরবের কাছে ১,৫০০ কোটি ডলার মূল্যের ‘থাড’ ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা বিক্রির বিষয়টি অনুমোদন করেছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here