রোহিঙ্গা সংকট মোকাবেলায় চীন, ভারত, সোভিয়েত ইউনিয়ন কেউই এখন বাংলাদেশের পাশে নেই বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তিনি বলেন, কূটনৈতিক ব্যর্থতায় রোহিঙ্গা সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে।

শনিবার ঢাকা রিপোটার্স ইউনিটি মিলনায়তনে এক আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

‘রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধান কোন পথে ও বর্তমান পেক্ষাপট’ শীর্ষক আলোচনার আয়োজন করে জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টি- জাগপা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলে, দেশের কূটনৈতিক ব্যর্থতার কারণে রোহিঙ্গা সমস্যা প্রকট আকার ধারণ করেছে। শক্তভাবে ভারত, চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে আলোচনা করতে পারলে বাংলাদেশ রোহিঙ্গা অনু প্রবেশ ঠেকানো যেত।

তিনি বলেন, রোহিঙ্গারা বেশিদিন থাকলে দেশে বহুমাত্রিক সমস্যা সৃষ্টি হবে। তাই এখনই বিশ্বব্যপী জোর কূটনৈতিক তৎপরতা সৃষ্টির মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের দেশে ফেরানোর ব্যবস্থা করতে হবে।

বিএনপির শীর্ষ এই নেতা আরো বলেন, রোহিঙ্গা ইস্যুর মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি আমেরিকাকে বোঝাতে সরকার ব্যর্থ হয়েছে। কূটনৈতিক ব্যর্থতা এখান থেকেই শুরু হয়েছে। জাতিসংঘে গিয়ে বিশ্ব নেতাদের সঙ্গে বৈঠকে রোহিঙ্গা ইস্যুতে প্রধানমন্ত্রী বলেছিলেন, আমেরিকার সাহায্য দরকার নেই। এটা প্রধানমন্ত্রী ভুল করেছিলেন। এ কারণেই বিশ্ব নেতারা মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন।

তিনি বলেন, মানবিক কারণেই আমরা রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দিচ্ছি। তবে এ ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সহায়তা প্রয়োজন বলেও জানান তিনি।

প্রধান বিচারপতির ছুটি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সরকার রাষ্ট্রের তিনটি স্তম্ভ ভেঙে ফেলেছে। প্রধান বিচারপতি অসুস্থ নয়। তাকে অসুস্থ বানিয়ে জোর করে ছুটিতে যেতে বাধ্য করেছে সরকার। প্রধান বিচারপতি পূজায় গিয়েছিলেন, অস্ট্রেলিয়া অ্যাম্বাসিতে গিয়েছিলেন। তবে তিনি কিভাবে অসুস্থ? দেশের গণতন্ত্র, দেশের মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে সে লক্ষ্যে সহায়ক সরকারের মাধ্যমে একটি অবাধ সুষ্ঠ নিরপেক্ষ নির্বাচনের ব্যবস্থা করতে হবে বলেও মন্তব্য করেন ড. মোশাররফ হোসেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here