মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নির্যাতন থেকে বাঁচতে রাখাইন থেকে পালিয়ে আসার পথে কক্সবাজারের টেকনাফ উপজেলার শাহপরীর দ্বীপ এলাকার সাগরে রোহিঙ্গা বহনকারী আরও একটি নৌকা ডুবে গেছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত ছয় শিশু ও চার নারীসহ ১২ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

বাংলাদেশ কোস্টগার্ডের কর্মকর্তা লে. কর্নেল জাফর ইমাম জানিয়েছেন, রাখাইনের ধাউনখালি থেকে ৫০-৬০ জন রোহিঙ্গাকে নিয়ে বাংলাদেশে আসার পর আজ (সোমবার) ভোর  চারটার দিকে নৌকাটি সাগরে ডুবে যায়। এ পর্যন্ত ১২টি মরদেহ এবং অন্তত ১৫ জনকে জীবিত উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া, আরও ২৫-৩০ জন নিখোঁজ রয়েছে।

টেকনাফ থানার ওসি মাঈনুদ্দিন খান জানিয়েছেন, নৌকাটিতে রোহিঙ্গা নারী, পুরুষ ও শিশুসহ অতিরিক্ত যাত্রীবোঝাই ছিল। শাহপরীর দ্বীপ দিয়ে এই রোহিঙ্গাদের বাংলাদেশে অনুপ্রবেশের কথা ছিল। নৌকাটি ডুবে যাবার পর প্রথমে স্থানীয় জেলেরা উদ্ধার তৎপরতা শুরু করেন। এরপর বিজিবি ও কোস্টগার্ডও উদ্ধারে নামে।

গত ২৫ আগস্ট মিয়ানমারের রাখাইন রাজ্যে রোহিঙ্গাদের ওপর নতুন করে রাষ্ট্রীয় সহিংসতা শুরুর হলে জীবন বাঁচাতে তারা বাংলাদেশে আসতে থাকে। মিয়ানমার-বাংলাদেশের সীমান্তবর্তী নাফ নদে ঝুঁকি নিয়ে ট্রলার, নৌকায় করে পারাপার হতে গিয়ে প্রায়ই নৌকাডুবির ঘটনা ঘটছে। গত ২৯ আগস্ট থেকে ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত নাফ নদী ও সাগরে রোহিঙ্গাবাহী ২৬টি নৌকাডুবির ঘটনা ঘটেছে। নৌকাডুবিতে এ পর্যন্ত ১৮৪ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here