যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিতর্কিত কর্মকাণ্ডের এমন কোনো তথ্য-প্রমাণ আছে আপনার হাতে, যা দিয়ে তাঁকে অভিশংসনের মাধ্যমে পদচ্যুত করা যাবে? থাকলে আজই যোগাযোগ করুন ল্যারি ফ্লাইন্টের সঙ্গে। ট্রাম্পকে অভিশংসনের মাধ্যমে পদচ্যুত করতে তাঁর বিপক্ষে যথেষ্ট তথ্য-প্রমাণ চাই ফ্লাইন্টের। সে জন্য ‘সর্বোচ্চ ১ কোটি ডলার’ পুরস্কারও ঘোষণা করেছেন যুক্তরাষ্ট্রের এ পর্নোগ্রাফি প্রকাশক।

৭৪ বছর বয়সী ফ্লাইন্ট তাঁর এ ইচ্ছা বাস্তবায়নে একটি বিজ্ঞাপনও দিয়েছেন ‘দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট’-এর রোববারের সংস্করণে। সেই বিজ্ঞাপনে ফ্লাইন্ট সবার কাছে ট্রাম্পের বিপক্ষে তথ্য-প্রমাণ চেয়েছেন, যা প্রকাশ করলে বেরিয়ে আসবে ‘থলের বিড়াল’ এবং পদচ্যুত হবেন ট্রাম্প।

মার্কিন প্রেসিডেন্টের বিপক্ষে ফ্লাইন্টের এই যুদ্ধ ঘোষণা কিন্তু নতুন কিছু নয়। গত বছর দেশটিতে প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের সময় ট্রাম্পের বিপক্ষে সোচ্চার হয়েছিলেন ফ্লাইন্ট। তখন প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী ট্রাম্পের অবৈধ যৌনতা কিংবা অবমাননাকর আচরণের সঙ্গে জড়িত থাকার যে কোনো অডিও বা ভিডিও চেয়েছিলেন ফ্লাইন্ট। সে জন্য ১০ লাখ ডলার পুরস্কারও ঘোষণা করেছিলেন। ফ্লাইন্ট কিন্তু এমনিতেই ট্রাম্পের পেছনে লাগেননি। ২০০৫ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সাপ্তাহিক টিভি অনুষ্ঠান ‘অ্যাকসেস হলিউড’-এ ট্রাম্প বলেছিলেন, তিনি জোর করে মেয়েদের সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে চান।

এবার উঠেপড়ে লেগেছেন ফ্লাইন্ট। এমন কিছু তথ্যপ্রমাণ খুঁজছেন, যা দিয়ে ট্রাম্পকে গদি থেকে সরানো যাবে। অভিশংসনের মুখে পড়বেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। ভিডিও হলে তো কথাই নেই। ফ্লাইন্টের বিশ্বাস, ট্রাম্পের যা চরিত্র, তাতে এ ধরনের স্পর্শকাতর কিছু খুঁজে না পেলেই তা হবে বোকামি। অবশ্য এর আগে নারীদের নিয়ে ট্রাম্পের বেফাঁস মন্তব্যের অডিও ফাঁস হয়ে গেলেও তেমন সুবিধা করতে পারেনি তাঁর বিরোধীপক্ষ। কী করে কী করে যেন ট্রাম্প ঠিকই ফাঁক গলে বেরিয়ে গেছেন। ক্ষতি যা হওয়ার হয়েছে বাকিদের।

ফলে ফ্লাইন্ট এবার জোরদার কিছু চাইছেন। সাধে তো আর ১ কোটি ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেননি!

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here