১৯৯৩ সালের ‘ডর’ছবির কথা বললেই আপনার মাথায় কী আসে? নিঃসন্দেহে এর উত্তর হবে, শাহরুখ খানের ‘কিকিকিকি কিরণ’ ডায়ালগ!

হিরোর কাছে ছবির ভিলেন বেদম মার খাবে, এটাই তো নব্বই-এর দশকের বেশির ভাগ ছবিতে দেখা যেত। যশ চোপড়া পরিচালিত সাইকোলজিকাল রোম্যান্টিক থ্রিলার ‘ডর’-এও এর অন্যথা হয়নি। ‘দামিনী’ ছবিতে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য জাতীয় পুরস্কার পেয়ে সানি দেওল তখন উচ্চতার শিখরে। আর শাহরুখ তখন নিউকামার।

শোনা যায়, যশ চোপড়া নাকি সানি দেওলকে সরাসরি সুযোগ দিয়েছিলেন নিজের পছন্দের চরিত্র বেছে নেওয়ার। মানে, ‘ডর’ছবিতে সানি নায়ক না ভিলেনের চরিত্রে থাকবেন তা ঠিক করেছিলেন সানি নিজেই।

সানি বেছে নিয়েছিলেন হিরোর চরিত্র। আর শাহরুখ হাতে চাঁদ পাওয়ার মতো লুফে নিয়েছিলেন ছবির ভিলেনের চরিত্র। ইন্ডাস্ট্রি সূত্রে জানা যায়, ভিলেনের এই চরিত্রে অভিনয়ের সুযোগ নাকি ছেড়ে দিয়েছিলেন আমির খান, অজয় দেবগণরা।

ছবির চিত্রনাট্য অনুযায়ী ‘ডর’এর ভিলেনই কিন্তু আসল নায়ক। ‘ডর’ সুপারহিট হওয়ার পর শাহরুখ তাঁর অভিনয়ের জন্য প্রচুর প্রশংসা পেয়েছিলেন। আর সেই থেকেই নাকি বলিউডের ‘বাদশা’র সঙ্গে কথা বন্ধ সানি দেওলের।

শোনা যায়, সানি দেওল নাকি নিজেকে প্রতারিত বলে মনে করেছিলেন সেই সময়। ঘনিষ্ঠমহলে এ কথা বলেও ছিলেন তিনি। শোনা যায়, সানি নাকি তখনই ঠিক করেছিলেন যশ চোপড়ার সঙ্গে তিনি আর কোনও দিন কাজ করবেন না।

সম্প্রতি ইন্ডিয়া টিভির একটি সাক্ষাতকারে সানি বলেছেন, দর্শক আমাকে যথেষ্ট ভালবেসেছিলেন ‘ডর’-এ। দর্শক শাহরুখকেও প্রশংসা করেছিলেন। আমার বক্তব্য একটাই, আমাকে জানানো হয়নি ছবিটিতে ভিলেনের চরিত্রকে বেশি গুরুত্ব দিয়ে দেখানো হবে।

যদিও সানি কোনও দিন শাহরুখের বিরুদ্ধে কোনও অভিযোগ করেননি। তবে ‘ডর’-এর পর এই দুই তারকা কোনওদিন এক সঙ্গে কাজও করেননি।

ভেবে দেখুন, বলিউডের কোনও অনুষ্ঠান, কোনও পার্টিতেও কিন্তু সানি ও শাহরুখকে এক সঙ্গে খুব একটা দেখাও যায় না। তবে কয়েক দিন আগে সানি দেওল তাঁর ছেলে কর্ণের বলিউড অভিষেকের খবর শেয়ার করেছিলেন। শাহরুখ শুভেচ্ছা জানিয়ে লিখেছিলেন, অল দ্য বেস্ট পাপা। ওঁ তোমার মতোই ভদ্র এবং সাহসী।

ভবিষ্যতে কোনও দিন এই দুই অভিনেতাকে এক সঙ্গে কাজ করতে দেখা যাবে কীনা, তা নিয়ে অবশ্য কেউই কোনও দিন মুখ খোলেননি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here