রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নিতে মিয়ানমারের উপর চাপ সৃষ্টি করতে ভারতের প্রতি আহবান জানিয়েছে বাংলাদেশ।

ঢাকা সফররত ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী সুষমা স্বরাজ এক বিবৃতিতে বলেছেন, উদ্বাস্তুদের রাখাইনে ফিরে যাওয়ার মধ্যেই এই সঙ্কটের শান্তিপূর্ণ সমাধান। পরে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাথে বৈঠকের সময়েও ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছেন, মিয়ানমারকে রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে হবে। কিন্তু রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে ভারত মিয়ানমারের ওপরে আসলে কতোটা চাপ সৃষ্টি করতে পারবে?

দিল্লিতে সরকারের ঘনিষ্ঠ একটি গবেষণা প্রতিষ্ঠান অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশনের গবেষক জয়িতা ভট্টাচার্য। তিনি বলছেন, “প্রতিবেশী রাষ্ট্র হিসেবে ভারতের অবশ্যই একটা চেষ্টা করা উচিৎ”

কিন্তু ভারত চাপ তৈরির এই কাজটি আসলে তারা কতটা করতে চায়?

এই নিয়ে তিনি বলছেন, “ব্যাপার হল কতটা করতে পারবে। তবে ভারতে অবশ্যই রোহিঙ্গা ইস্যুকে খুব নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করা হচ্ছে। বিভিন্ন পর্যায়ে অবশ্যই ইস্যুটি নিয়ে পর্যালোচনা হচ্ছে”

রোহিঙ্গাদের জন্য ভারত শুরুতেই ত্রাণ পাঠিয়েছে। কখনোই তাদের ফিরিয়ে নিয়ে যাওয়ার ব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু বলে নি। কিন্তু এবার ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলছেন রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার মধ্যেই এই সংকটের সমাধান।

একদিকে ভারত চাইছে মিয়ানমারের সাথে সম্পর্ক তৈরি করতে। অন্যদিকে বাংলাদেশও ভারতের বন্ধু।

ভারত কি মিয়ানমার ও বাংলাদেশকে একই সাথে খুশি রাখতে পারবে?

জয়িতা ভট্টাচার্য বলছেন, “ভারতের কূটনীতির জন্যে এটি একটি মস্ত বড় পরীক্ষা হবে। ভারত কিভাবে দু দেশের সাথে সম্পর্ক ব্যালান্স করবে সেটি একটি ইস্যু”

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here