দক্ষিণ আফ্রিকা সফরের শুরু থেকেই কোনো কূল কিনারা খুঁজে পাননি বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা। ব্যাটিং, বোলিং, ফিল্ডিং কোনো বিভাগেই নিজেদের পুরোনো ছন্দে নেই বাংলাদেশ দল। আর বোলারদের জন্য এই সফর তো একরকম দুঃস্বপ্নের মতো। কিন্তু এই ব্যর্থতার দায় কোচের উপর না দিয়ে নিজেদের উপর নিলেন পেসার রুবেল হোসেন।

টেস্ট সিরিজের দুঃস্বপ্নের পর ওয়ানডেতে ঘুরে দাঁড়ানোর ‘প্রত্যয়’ নিয়েই মাঠে নেমেছিল বাংলাদেশ। জয় তো আসেইনি, উল্টো বড় ব্যবধানে হেরে ধবলধোলাই হয়েছে মাশরাফির দল। টেস্ট সিরিজে টাইগার বোলাররা প্রতিপক্ষের উইকেট নিয়েছেন মাত্র ১৩ টি। আর তিন ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজে পেয়েছেন ১২টি উইকেট।

গতি দিয়ে পুরো সিরিজে ভয় ছড়িয়েছেন প্রোটিয়া পেসার কাগিসো রাবাদা, নতুন বোলাররাও তুলে নিয়েছেন টাইগার ব্যাটসম্যানদের উইকেটগুলো। সেখানে বাংলাদেশী বোলারেরা উইকেট শিকারের বদলে দিয়েছেন রান। ওয়ানডে সিরিজে বল হাতে বাংলাদেশের সফলতম বোলার ছিলেন রুবেল। তিন ম্যাচে নিয়েছেন ৫ উইকেট। বাকি বোলারদের অবস্থা হতাশাজনক।

টেস্টের পর ওয়ানডে সিরিজেও বোলারদের টানা ব্যর্থতায় প্রশ্ন উঠেছে বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশের ভূমিকা নিয়েও। তবে এখানে টাইগার বোলিং কোচ কোর্টনি ওয়ালশের কোনো দায় দেখছেন না রুবেল, জানিয়েছেন গণমাধ্যমকে।

‘এ ধরনের কোনো কিছুই আমার মনে হয় না। কোচের কাছ থেকে আমরা বুঝতে পারছি না, কিংবা এ ধরনের কোনো কিছু নেই। আমাদের যে পরিকল্পনা ছিল, পরিকল্পনা অনুযায়ী আমরা বোলিং করতে পারিনি। নতুন বলে দ্রুত উইকেট নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ ছিল। ওটা আমরা পারিনি। ওরা খুবই সহজে রান করে নিতে পেরেছে।’

প্রোটিয়া সফরের সব অতীতকে পিছনে ফেলে সামনের টি-টুয়েন্টি সিরিজ নিয়েই ভাবছে টাইগাররা। টি-টুয়েন্টি সিরিজের প্রথম ভেন্যু ব্লুমফন্টেইনে যাওয়ার আগে সংক্ষিপ্ত ফরম্যাটে নিজেদের চেষ্টার কথা জানিয়েছেন রুবেল হোসেন,

‘প্লানিং অনুযায়ী আমরা বোলাররা যদি ভালো কিছু করতে পারি আর ব্যাটসম্যানরা যদি রান পায় তাহলে টি-টুয়েন্টি সিরিজে ভালো কিছু আশা করা যায়। তাছাড়া ম্যাচের আগে প্র্যাক্টিসে তাদের ব্যাটসম্যানদের নিয়ে আমাদের বেশ মনোযোগী হতে হবে।’

বোলারদের ব্যর্থ হওয়ার পিছনে প্রোটিয়া কন্ডিশন ছিল বেশ সহায়ক। কন্ডিশনের সাথে একেবারেই মানিয়ে নিতে পারেনি টিম টাইগার্স। উপমহাদেশের থেকে ভিন্ন কন্ডিশনে ক্রিকেটারদের পূর্ব প্রস্তুতি নিয়েও বলেছেন টাইগার পেসার রুবেল হোসেন,

‘এই ধরনের কন্ডিশনে আসার আগে আমাদের মানসিক ভাবে শক্ত হতে হবে। কিভাবে বোলিং করতে হবে, কোন ব্যাটসম্যানকে কোন জায়গায় বল করে পরাস্থ করতে হবে। এই সফর থেকে আমাদের অনেক কিছুই অর্জন করার আছে, যা ভবিষ্যত সফরে সহায়তা করবে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here