আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, মানবতা নয়, রাজনৈতিক উদ্দেশ্য হাসিলের জন্যই বেগম খালেদা জিয়া কক্সবাজারে রোহিঙ্গাদের মাঝে ত্রাণ বিতরণ করতে যাচ্ছেন। শনিবার মৌলভীবাজারে দলীয় এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।

এর আগে শুক্রবার নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলা আওয়ামী লীগ আয়োজিত মহিলা সমাবেশে যোগদানের প্রাক্কালে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরীর বাসভবনে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ ও শেখ হাসিনা সম্পর্কে বেগম খালেদা জিয়ার আদালতে বলা মিথ্যাচার রাজনীতির ভাষা নয়, এটা রাস্তার ভাষা।

মন্ত্রী বলেন, তিনি (খালেদা) আদালতে গিয়ে এমন কিছু বিষয়ের অবতারণা করেছেন, সেটা রাজিনৈতিক বক্তব্য। যা দেশের রাজনৈতিক অঙ্গনে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ওয়ান ইলেভেনের সময় তৎকালীন বিরোধী দলীয় নেত্রী ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অসম্মানজনক ও অপমানজনকভাবে আদালতে নেয়া হয়েছে। অথচ সেই সময়ের প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়াকে আধুনিক সকল সুযোগ সুবিধাসহ বাড়ি বরাদ্দ করে সাব-জেল তৈরী করে সেখানে নেয়া হয়। অথচ খালেদা জিয়া আদালতে বলেন শেখ হাসিনা লাকি, তাকে কখনো আদালতে যেতে হয়নি।

তিনি বলেন, ত্রাণ দিতে গিয়ে ত্রাণ সরবরাহের পথ রুদ্ধ করবেন না। ত্রাণ সরবরাহ করা না গেলে ছয় লাখ মানুষ কষ্ট পাবে। ত্রাণ দেয়ার নামে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম এবং চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার মহাসড়কে যাওয়া-আসার সময় রাস্তায় সভা করে রাজনৈতিক অঙ্গনে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করবেন না।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ত্রাণের নাম করে তিন দিন ঢাকা-চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়ক অচল করে রাখবেন। এতে ত্রাণ সরবরাহের পথ বন্ধ হয়ে যাবে। বিষয়টি মানবিক হলেও তাদের উদ্দেশ্য রাজনৈতিক।

খালেদা জিয়ার উদ্দেশ্যে তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশের শত শত মানুষকে তিনি পুড়িয়ে মেরেছেন। শত শত মানুষের কান্নার রোল এখনো বাংলার আকাশে ভেসে আসছে। আদালতে গিয়ে কান্নাকাটি করে জনগণের কাছে মায়া কান্না দেখিয়ে তথাকথিত সহানুভূতি অর্জনের চেষ্টা করছেন। পুত্রহারা মাকে সান্ত্বনা দিতে গিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যে নিষ্ঠুর আচরণের মুখোমুখি হয়েছেন, তা বিশ্বের কোনো সভ্যতার মধ্যে পড়ে না।

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here