রবিবারের প্রার্থনার জন্য গির্জায় উপস্থিত হয়েছিলেন জনা পঞ্চাশেক মানুষ। তার মধ্যে আচমকাই যুদ্ধের পোশাক পরে গির্জায় চড়াও হয় এক বন্দুকবাজ। কিছু বুঝে ওঠার আগেই এলোপাথাড়ি গুলি চালাতে শুরু করে সে। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত নিহতের সংখ্যা ২৭। সেই তালিকায় রয়েছে দু’বছরের এক শিশুও।

আজ ভয়াবহ এই ঘটনার সাক্ষী রইল টেক্সাসের সান অ্যান্টোনিও থেকে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দূরে সাদারল্যান্ড স্প্রিংসের ফার্স্ট ব্যাপ্টিস্ট গির্জা। উইলসন কাউন্টির কমিশনার অ্যালবার্ট গোমেজ জুনিয়র সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ওই ঘটনায় আহত হয়েছেন অন্তত ৩০ জন। নিহতের সংখ্যা বাড়তে পারে বলেই আশঙ্কা।

একের পর এক হামলায় বিধ্বস্ত আমেরিকা। গত সপ্তাহের প্রথম দিকেই নিউ ইয়র্কে ট্রাক-হামলা চালিয়েছিল এক আইএস জঙ্গি। সেই আতঙ্কের রেশ কাটিয়ে আজ নিউ ইয়র্কে ম্যারাথনে সামিলও হয়েছিলেন শহরবাসী। কিন্তু তার মধ্যেই টেক্সাসে বন্দুকবাজের হানায় ফের আতঙ্ক ছড়িয়েছে। তবে এই হামলার দায় স্বীকার করেনি কোনও জঙ্গি গোষ্ঠী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানিয়েছেন, এ দিন সকাল সাড়ে এগারোটা নাগাদ গির্জায় হামলা চালায় ওই বন্দুকবাজ। প্রায় কুড়ি রাউন্ড গুলি চালিয়ে গাড়ি নিয়ে পালানোর চেষ্টা করে সে। কিন্তু কিছু দূরে গিয়ে ধাক্কা খায়। এর পরে গাড়ি থেকে নেমে  পালাতে থাকে ওই বন্দুকবাজ। পুলিশও তার পিছু নেয়। পুলিশের গুলিতেই নিহত হয় সে। বন্দুকবাজের পরিচয় জানা যায়নি।

হামলার ঘটনায় উদ্বিগ্ন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। আপাতত এশিয়ার পাঁচটি দেশ সফরে গিয়েছেন তিনি। ট্রাম্পের টুইট, ‘‘টেক্সাসের সাদারল্যান্ড স্প্রিংসের মানুষের সঙ্গে ঈশ্বর আছেন। ঘটনাস্থলে রয়েছেন এফবিআই ও আইনরক্ষকেরা। জাপান থেকে পরিস্থিতির উপরে আমি নজর রাখছি।’’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here