লক্ষ্যটা খুব একটা কঠিন ছিল না। শুরুর জোড়া আঘাতে পরিস্থিতি একটু ঘোলাটে হয়েছিল এই যা। শেষ পর্যন্ত সহজ লক্ষ্য সহজেই পেরিয়ে গেছে খুলনা টাইটানস। উড়তে থাকা সিলেট সিক্সার্সকে মাটিতে নামিয়ে মাহমুদউল্লাহরা পেয়েছে চলতি বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) প্রথম জয়। সিলেটের ৫ উইকেটে করা ১৩৫ রানের জবাবে খুলনা ১২ বল হাতে রেখে জয় নিশ্চিত করে ৪ উইকেট হারিয়ে। যাতে ৬ উইকেটের জয়ে সিলেট পর্ব শেষ করল খুলনা।

সিলেট দিয়ে শুরু হয়েছে এবারের আসর। ৮ নভেম্বরই এখানে শেষ হচ্ছে। ঢাকা পর্বে আসার আগে চার ম্যাচের তিনটিতে জয় পেল ক্রিকেট জোয়ারে ভাসা সিলেট সিক্সার্স।

১৩৬ রানের টার্গেট দিয়ে বল করতে নেমে তৃতীয় ওভারে নাজমুল হোসেন শান্তকে  (৭) ফেরান তাইজুল। শুরুর ধাক্কা সামলে ওঠার আগেই চ্যাডউইক ওয়াল্টনকে বোল্ড করেন ওই তাইজুল। রুশো ১৭ বলে ১৯ করে ফিরে যাওয়ার পর রিয়াদ করেন ২৩ বলে ২৭। পাঁচ উইকেট হারানোর পর ক্লিনজার এবং কার্লোস ব্রেথওয়েট ম্যাচটা ধরে রাখেন। সেখান থেকে জয়ও এনে দেন।

খুলনা এদিন টস জিতে সিলেটকে আগে ব্যাট করতে পাঠায়। সিলেট আগের ম্যাচে টস হেরে আগে ব্যাট করে জয় পায়। এদিন অবশ্য শেষ ম্যাচের মতো মারমুখী ব্যাটিং হয়নি তাদের।

সিলেট সিক্সার্স ব্যাটিংয়ে নেমে দলীয় ১৯ রানে প্রথম উইকেট হারায়। শফিউল ইসলামের বলে রিয়াদের হাতে ধরা পড়েন আন্দ্রে ফ্লেচার। ৪ রান করে ফিরে যান তিনি। দলীয় ২০ রানে জফরা আর্চারের বলে রিয়াদের হাতে ক্যাচ হন সাব্বির রহমান। ছয় বল খেলে শূন্য রান করেন তিনি।

এরপর দলীয় ৫১ রানে আরিফুল হকের ক্যাচ বানিয়ে উপুল থারাঙ্গাকে ফেরান রিয়াদ। ২৪ বল খেলে ২৬ রান করেন তিনি। ইনিংসের ১২তম ওভারে দানুশকা গুনাথিলাকাকে সাজঘরে ফেরান ওই রিয়াদ। উইকেটরক্ষকের হাতে ক্যাচ দেন গুনাথিলাকা। ১৯তম ওভারে জফরা আর্চারের বলে ছক্কা হাঁকাতে গিয়ে রিলি রুশোর হাতে ক্যাচ হন রস হুইটলি। ২৩ বল খেলে ২৭ রান করেন তিনি। শেষ দিকে ৩৫ বল খেলে ৪৭ রান করে অপরাজিত থাকেন অধিনায়ক নাসির হোসেন। তার সঙ্গে তিন বল খেলে তিন রান করে অপরাজিত থাকেন নুরুল হাসান সোহান।

খুলনা টাইটান্সের পক্ষে রিয়াদ দুটি, জফরা আর্চার ২টি ও শফিউল ইসলাম একটি করে উইকেট নেন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ফল: ছয় উইকেটে জয়ী খুলনা টাইটান্স।

সিলেট সিক্সার্স ইনিংস: ১৩৫/৫ (২০ ওভার)

(উপুল থারাঙ্গা ২৬, আন্দ্রে ফ্লেচার ৪, সাব্বির রহমান ০, দানুশকা গুনাথিলাকা ২৬, নাসির হোসেন ৪৭*, রস হোয়াইটলি ২৭, নুরুল হাসান সোহান ২*; মোশাররফ হোসেন রুবেল ০/১৩, জফরা আর্চার ২/২৫, শফিউল ইসলাম ১/২০, আবু জায়েদ রাহি ০/৪০, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ২/১২, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট ০/২৪)।

খুলনা টাইটান্স ইনিংস: ১৩৮/৪ (১৮ ওভার)

(নাজমুল হোসেন শান্ত ৭, চাঁদউইক ওয়ালটন ১১, মাইকেল কলিঙ্গার ৪৭*, রিলি রুশো ১৯, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ২৭, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট ২৩*; তাইজুল ইসলাম ৩/১৯, নাসির হোসেন ০/১৮, ক্রিসমার সানতোকি ০/১৬, দানুশকা গুনাথিলাকা ০/৮, আবুল হাসান রাজু ০/৩৯, মোহাম্মদ শরীফ ০/২৭, রস হোয়াইটলি ১/১০)।

প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ: মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ (খুলনা টাইটান্স)।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here