আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা হিউম্যান রাইটস ওয়াচ বা এইচআরডাব্লিউ বলেছে, সৌদি সরকার ক্ষমতা সুসংহত করার লক্ষ্যেই কেবল রাজপুত্র, মন্ত্রী ও ব্যবসায়ীদের বিরুদ্ধে ধরপাকড় অভিযান চালাচ্ছে।

সংস্থাটির মধ্যপ্রাচ্য বিষয়ক পরিচালক সারা লিন উইটসন বুধবার নিউ ইয়র্কে বলেন, সৌদি আরবে রাতের অন্ধকারে হঠাৎ করে দুর্নীতি বিরোধী একটি সংস্থা গঠন করা হলো এবং সঙ্গে সঙ্গে একদল প্রিন্স, বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রী, পদস্থ কর্মকর্তা এবং বিশিষ্ট ব্যবসায়ীকে আটক করা হলো। এ ঘটনা দেশটির মানবাধিকার পরিস্থিতি সম্পর্কে উদ্বেগ বাড়িয়ে দিয়েছে বলে তিনি মন্তব্য করেন।

এইচআরডাব্লিউ আরো বলেছে, সৌদি সরকারকে অবিলম্বে আটক ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে নেয়া আইনগত ব্যবস্থা প্রকাশ্যে ঘোষণা করতে হবে এবং তারা যাতে সব রকম আইনি সহায়তা পায় সে বিষয়টি নিশ্চিত করতে হবে।

এসব বিশিষ্ট ব্যক্তিকে আটকের কারণ হিসেবে সৌদি কর্মকর্তারা দুর্নীতির যে অভিযোগ উত্থাপন করেছেন সে সম্পর্কে সারা উইটসন বলেন, তারা সত্যি সত্যি দুর্নীতি করে থাকলেও সে সংক্রান্ত তদন্ত ও গ্রেফতার বিচার বিভাগের পক্ষ থেকে হওয়া উচিত। এ ছাড়া, গণহারে বিশিষ্ট ব্যক্তিদের গ্রেফতার করে তাদেরকে বিলাসবহুল হোটেলে রাখারও সমালোচনা করেন তিনি।

সম্প্রতি সৌদি রাজা সালমান নিজের ছেলে যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানকে দুর্নীতি দমন কমিটির প্রধান হিসেবে নিয়োগ দেন। নিয়োগ পাওয়ার পরপরই ৪ নভেম্বর রাতে সৌদি আরবের ন্যাশনাল গার্ড বাহিনীর প্রধানসহ বহু প্রিন্স, পদস্থ কর্মকর্তা, বর্তমান ও সাবেক মন্ত্রী এবং ব্যবসায়ীকে আটক করেন সালমান। আটক ব্যক্তিদেরকে একটি বিলাসবহুল হোটেলে অন্তরীণ রাখা হয়েছে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here