উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাম্প্রতিক হুমকির প্রতিক্রিয়ায় পিয়ংইয়ং বলেছে, কোরীয় উপদ্বীপে পরমাণু যুদ্ধ শুরু করার লক্ষ্যে এশিয়া সফর করছেন ট্রাম্প।

দেশটি আরো বলেছে, ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই ‘ভবঘুরে সফর’ উত্তেজনা ও একটি পরমাণু যুদ্ধ শুরু হওয়ার আশঙ্কা বৃদ্ধি ছাড়া অন্য কোনো ফল বয়ে আনবে না।

ট্রাম্প গত কয়েকদিনে জাপান ও দক্ষিণ কোরিয়া সফরে গিয়ে উত্তর কোরিয়াকে একটি স্বৈরতান্ত্রিক দেশ হিসেবে অভিহিত করে বলেন, পিয়ংইয়ং-এর ব্যাপারে আমেরিকার কৌশলগত ধৈর্যের বাঁধ ভেঙে যাচ্ছে। তিনি আবারো উত্তর কোরিয়াকে ধ্বংস করে ফেলার হুমকি দেন।

তার এ হুমকির প্রতিক্রিয়ায় উত্তর কোরিয়ার সরকারি দলের মুখপত্র দৈনিক রডং সিনমুন এক সম্পাদকীয়তে লিখেছে, ট্রাম্প শুধুমাত্র উত্তর কোরিয়ার বিরুদ্ধে সামরিক হামলার হুমকি দেয়ার জন্য দক্ষিণ কোরিয়া সফর করেছেন।

সম্পাদকীয়তে আমেরিকার সাম্রাজ্যবাদী নীতির অন্ধ অনুসরণ  করার জন্য দক্ষিণ কোরিয়াকে দায়ী করে বলা হয়, এতসব বিদ্বেষী তৎপরতা ও চাপ প্রয়োগ সত্ত্বেও নিজের সামরিক শক্তি ও সমরাস্ত্র কর্মসূচি নিয়ে আমেরিকার সঙ্গে আলোচনায় বসবে না পিয়ংইয়ং।

সাম্প্রতিক সময়ে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের যুদ্ধংদেহী মনোভাবের কারণে উত্তর কোরিয়ার সঙ্গে ওয়াশিংটনের সম্পর্কে উত্তেজনা ব্যাপকভাবে বেড়ে গেছে। মার্কিন সরকার উত্তর কোরিয়াকে পরমাণু অস্ত্র ও দূরপাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষা বন্ধ করার আহ্বান জানিয়েছে।

কিন্তু পিয়ংইয়ং বারবার বলে এসেছে, দেশটির বিরুদ্ধে আমেরিকা ও তার মিত্রদের হুমকি বন্ধ না হলে এসব পরীক্ষাও বন্ধ হবে না। এমনকি আমেরিকার বিরুদ্ধে আগাম হামলারও হুমকি দিয়ে রেখেছে উত্তর কোরিয়া।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here