জয় দিয়ে শুরু করেছিল তারা এবারের বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) আসর। ‍দুর্দান্ত শুরুর পর থেকে রংপুর রাইডার্স হারের বৃত্তে বন্দি। অবশেষে সেই বৃত্ত ভেঙে জয়ের পথে ফিরলো তারা। সোমবার ক্রিস গেইলের হাফসেঞ্চুরির পর বোলারদের দুর্দান্ত পারফরম্যান্সে সিলেট সিক্সার্সকে হারিয়েছে রংপুর ৭ রানে। তাতে তিন ম্যাচ পর মাশরাফি বিন মুর্তজারা পেল জরেয় দেখা।

হাতে ৬ উইকেট রেখেও সিলেট টপকাতে পারেনি ১৭০ রানের টার্গেট। রংপুরের শেষের জাদুকরী বোলিংয়ে তাদের থামতে হয় ১৬২ রানে। টানা তিন হারের পর জয় দেখল রংপুর।

শুধু বোলিংয়ে ওই ওভারটিই নয়। ফিল্ডিংয়েও জাদু দেখিয়েছেন মাশরাফী। সীমানায় দাঁড়িয়ে ছক্কা ঠেকিয়েছেন একটি। আঠারতম ওভারে পয়েন্ট থেকে ফিরিয়েছেন নিশ্চিত চার। টিম ব্রেসনান উইকেটে এসেই কাট করেন। ডানদিকে উড়ে মাশরাফী ঠেকান সেটি। বাঁচিয়ে দেন ৩ রান।

শুরুর কাজটা করে দিয়েছিলেন সোহাগ গাজী, মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা, রুবেল হোসেন মিলে। ২৫ রানের মধ্যে বাবর আজম (২) দানুস্কা গুনাথিলাকা (৮) আন্দ্রে ফ্লেচার (১২) ফিরে যান। ওভারও পেরিয়ে যায় চারটা। মাশরাফীর ম্যাজিক ওভারের আগ পর্যন্ত কেবলই সাব্বির-নাসিরের দুর্দান্ত ব্যাটিং উপভোগ করেছেন শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের দর্শকরা। জুটিতে ১০০ রান চলে আসে ৬৬ বলে। শেষ পর্যন্ত ১১৭ রানের জুটিটি ভাঙেন পেরেরা, সাব্বিরকে লং অনে ক্যাচ বানিয়ে। ৪৯ বলে ৭চার ও দুই ছক্কায় সাজান ৭০ রানের ইনিংসটি। ৩২ বলে ফিফটি লং অফের উপর দিয়ে পেরেরাকে ছক্কা হাঁকিয়ে। চার চার ও দুই ছক্কায় পূর্ণ করেন বিপিএলের পঞ্চম আসরের প্রথম ফিফটি। সিলেটের অধিনায়ক নাসির অপরাজিত থেকে যান ৫০ রানে।

অফস্পিনারের সামনে গেইলের দুর্বলতা জানা সবার। বাংলাদেশে খেলতে এলেই শুরুর ওভারেই পড়েন অফস্পিনারের সামনে। নাকাল হতে দেখা গেছে এবারের বিপিএলেও।   নাসির প্রথম ওভারে দিলেন এক রান। প্রথম বলে ম্যাককালাম সিঙ্গেল নিয়ে চলে যান নন স্ট্রাইকে। ৫ বল খেলে রান বের করতে পারেননি গেইল। পরের ওভারে শুভাগতকে দুই ছক্কা হাঁকান ম্যাককালাম।

নাসিরকে ১২ বল ডট দিয়ে ছক্কা হাঁকিয়ে গেইল ভাঙেন ডটের বৃত্ত। ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠার আগেই ম্যাককালামকে সাজঘরে পাঠান নাসির। ৮০ রানের জুটিতে তখন বড় সংগ্রহের সম্ভাবনা দলটির সামনে। শুরুতে উইকেটে অস্বস্তিতে ভোগা গেইল খোলস ছেড়ে বের হতেই ফিরে যান  আবুল হাসান রাজুর বলে বোল্ড হয়ে। ততক্ষণে অবশ্য ফিফটি পর্ণ করে ফেলেছেন এই্ ক্যারিবীয় ব্যাটিং দানব। ৫০ রান করেন ৩৯ বলে দুটি চার ও পাঁচটি ছক্কায়।

ভাল শুরু ধরে রাখতে পারেনি রংপুর। ছোট ছোট ইনিংস খেলে বিদায় নেন মোহাম্মদ মিঠুন (২৫), থিসারা পেরেরা (১৫), শাহরিয়ার নাফীস (৮)। শেষ দিকে রবি বোপারা ঝড় না তুললে দেড়শ’র বৃত্তে আটকে যেতে পারত রংপুর।  ১২ বলে তিন  চার ও এক ছক্কায় ২৮ রান তুলে লড়াকু পুঁজিতে নিয়ে যান তিনি।

সিলেটের সফল বোলার আবুল হাসান রাজু। গেইল ও শাহরিয়ার নাফীসের উইকেট নিয়েছেন এই ডানহাতি পেসার। রান দিয়েছেন ৪ ওভারে ২৪। মিডল ওভারে দারুণ স্লোয়ার দিয়ে রান আটকে রাখেন টিম ব্রেসনান। এই ইংলিশ বোলার ছিলেন সবচেয়ে কিপটে। চার ওভারে মাত্র ২৩ রান দিয়েছেন, উইকেটও নিয়েছেন একটি। নাসির দেন ৪ ওভারে একটি মেডেনসহ ২৭ রান। বিনিময়ে পান ম্যাককালামের উইকেট। সবচেয়ে খরুচে ছিলেন লিয়াম প্লাঙ্কেট।  ৪ ওভারে ৪৯ রান দিয়ে একটি উইকেট নেন এই ইংলিশ পেসার।

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here