মুক্তিযুদ্ধে অংশ নেয়া সব বাহিনীর সদস্যদের ২০১৮ সাল থেকে ভাতা প্রদান করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার ঢাকা সেনানিবাসের শিখা অনির্বাণে সশস্ত্র বাহিনী দিবস উপলক্ষে শ্রদ্ধা জানানো শেষে তিনি এ কথা বলেন।

সশস্ত্র দিবস উপলক্ষে ঢাকা সেনানিবাসের আর্মি মাল্টিপারপাস কমপ্লেক্সে মুক্তিযুদ্ধের সাতজন বীরশ্রেষ্ঠর উত্তরাধিকারী এবং খেতাবপ্রাপ্ত ১০১ জন মুক্তিযোদ্ধা ও তাদের উত্তরাধিকারীদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

এসময় তাদের হাতে চেক ও শুভেচ্ছা উপহার তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

ইতিহাস কখনো মুছে ফেলা যায় না মন্তব্য করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর ঘাতকরা ৭ মার্চের ভাষণ ও মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস মুছে ফেলোর চেষ্টা করেছিল। সেই ৭ মার্চের ভাষণ এখন আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছে। ইতিহাস কখনো মুছে ফেলা যায় না, ইতিহাস নিজেই তার অবস্থান করে নেয়।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১০ জানুয়ারি দেশে ফিরে বাংলাদেশকে উন্নত দেশ হিসেবে গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি সময় পেয়েছিলেন মাত্র সাড়ে ৩ বছর। তিনি আরো সময় পেলে বাংলাদেশ অনেক আগেই বিশ্বের দরবারে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারতো।

তিনি আরও বলেন, যারা একটি দেশ, একটি জাতি গঠনের জন্য কাজ করেছে তাদের অনুভূতি থাকে। আর যারা উড়ে এসে জুড়ে বসে তাদের কোনো দেশ-জাতির প্রতি কোনো দরদ থাকে না।

চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় বাংলাদেশ সক্ষম আর এ ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে সকলের প্রতি আহ্বান জানান শেখ হাসিনা।

এর আগে শিখা অনির্বাণে সকাল ৮টায় রাষ্ট্রপতি শ্রদ্ধা জানান। এরপর সোয়া ৮টার দিকে প্রধানমন্ত্রী শ্রদ্ধা জানান। এ সময় শহীদদের স্মৃতির উদ্দেশ্যে সশস্ত্র সালাম নিবদন করেন তিন বাহিনীর একটি চৌকষ দল।

শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সেখানে কিছুক্ষণ নীরবে দাঁড়িয়ে থাকেন রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী। এ সময় বিউগলে করুণ সুর বাজানো হয়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here