বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, বর্তমান সরকারের অধিনে নির্বাচনে আসা ছাড়া বিএনপির কোন বিকল্প নেই। বিএনপি নির্বাচনে না আসলে তাদের অস্তিত্ব সংকট হবে। নির্বাচন হবেই। এই নির্বাচন বানচার করার ক্ষমতা তাদের নেই। বিএনপির নেতারা বলেন, অভ্যুত্থান ঘটাবে। আমাদের টেনে হেচরে নামাবেন। আমি চ্যালেঞ্জ করছি। যদি সাহস থাকেন তা হলে সেই চেষ্টা করুন। যারা ২০১৩/১৪ সালের মতো সন্ত্রাসী কার্যকলাপ করবে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে। কারো যদি জেলে যাওয়া ইচ্ছা থাকে তা হলে ওই ধরনের আন্দোলন করার হুমকি দিতে পারেন।

শুক্রবার ভোলার লালমোহন উপজেলার ধলিগৌরনগর আব্দুল ওয়াহাব মাধ্যমিক বিদ্যালয় মাঠে ভোলাস্থ ঢাকা সমিতি কর্তৃক আয়োজিত আলহাজ্ব আব্দুল হান্নান হাওলাদার শিক্ষাবৃত্তি ও সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেছেন।

ঢাকাস্থ ভোলা সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মাকসুদ হেলালী সভাপতিত্বে এ সময় বিশেষ অতিথি ছিলেন, ভোলা-৩ আসনের সংসদ সদস্য নুরুন্নবী চৌধুরী শাওন, ভোলা-২ আসনের সংসদ সদস্য আলী আজম মুকুল। এসময় বক্তব্য রাখার পাশাপশি উপস্থিত ছিলেন, ভোলা জেলা প্রশাসক মো: সেলিম উদ্দিন, ভোলা সদর উপজেলা চেয়ারম্যান মোশারেফ হোসেন,ঢাকাস্থ ভোলা সমিতির সাধারন সম্পাদক শহিদুল হক মুকুল, ইঞ্জিনিয়র আবু নোমান হাওলাদার,আওয়ামী লীগ নেতা এবিএম মামুন অর রশিদ, লালমোহন উপজেলা চেয়ারম্যান গিয়াস উদ্দিন জেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ন সম্পাদক জহুরুল ইসলাম নকিব,এনামুল হক আরজু,মো: ইউনুস,মাইনুল হোসেন বিপ্লব প্রমুখ।

মন্ত্রী বলেন,আজ লালমোহন তজুমদ্দিন সাজানো হয়েছে এমপি শাওনের কারনে।একই ভাবে বোরহানউদ্দিন দৌলতখান এমপি মুকুল, চরফ্যাসন মনপুরা জ্যাকব সাজিয়েছে। তাদের কোন বিকল্প নেই। বাণিজ্য মন্ত্রী বলেন, আজ বিএনপি ভোলায় শান্তিতে আছে। আর আমরা তাদের আমলে ছিলাম অশান্তিতে।

তোফায়েল আহমেদ আরও বলেন, আাগামী নির্বাচনে অবশ্যই আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসবে ইনশাআল্লাহ। কারণ এই দেশে স্বাধীনতা বিরোধীদের সাথে ঐক্য করে বিএনপি ভোটের মাঠে যাবে কি করে – আমি ভাবতে পারি না। তিনি বলেন, ভোলার গ্রামীন অবকাঠামো উন্নয়নে ৪৬৫ কোটি টাকা বরাদ্ধ দেয়া হয়েছে। নদী ভাঙ্গন রোধে ১৭ শ কোটি টাকা বরাদ্ধ হয়েছে। ভোলায় বিপুল পরিমান গ্যাস দিয়ে শিল্পকলকারখানা স্থাপন করা হবে। ব্যপক কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। ঘরে ঘরে বিদ্যুৎ পৌছে দেয়া হবে।

পরে ২০১৫-২০১৬ শিক্ষাবর্ষে ভোলায় এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ প্রাপ্ত ১২০ জন শিক্ষার্থীদেরকে শিক্ষা বৃত্তি প্রদান করা হয়। এর আগে সুলতান আহমেদ হাওলাদার পন্ডিত পাঠাগার ও আবদুল ওয়াহাব হাওলাদার মিলনায়তনের ভিত্তিপ্রস্থর উন্মোচন করেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here