বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) মঙ্গলবার দিনের প্রথম ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে ১৪ রানে হারিয়েছে ‍খুলনা টাইটান্স। এই জয়ের মাধ্যমে লিগ পর্ব শেষ করলো রিয়াদের দল। এবার তারা অংশ নিবে প্লে-অফে। কিন্তু শেষ চারে তারা কোন দলের মুখোমুখি হবে তা এখনও ঠিক হয়নি।

লিগ পর্বে মোট ১২টি ম্যাচ খেলে সাতটিতে জিতেছে খুলনা টাইটান্স। আর একটি ম্যাচ পরিত্যক্ত হওয়ায় মোট ১৫ পয়েন্ট নিয়ে তারা পয়েন্ট টেবিলে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে। অন্যদিকে, কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ১১টি ম্যাচ খেলে ১৬ পয়েন্ট নিয়ে শীর্ষে রয়েছে। তারা অংশ নিবে প্লে-অফে।

শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামে শুরুতে ব্যাট করে নির্ধারিত ওভারে ৬ উইকেটে ১৭৪ রান তোলে খুলনা টাইটানস। জবাব দিতে নেমে নির্ধারিত ওভারে ৭ উইকেটে ১৬০ রানে আটকে যায় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের ইনিংস।

রান তাড়া করতে নেমে তামিম ইকবালের ৩৩ বলে ৩৬, ইমরুল কায়েসের ১৯ বলে ২০, শোয়েব মালিকের ২৩ বলে ৩৬ রানে লড়াইয়ে থাকলেও প্রয়োজনীয় রানরেটের সঙ্গে পাল্লা দিতে না পারায় হার দেখতে হল কুমিল্লাকে। শেষ দিকে মারলন স্যামুয়েলসের ১৫ বলে অপরাজিত ২১ কেবল পরাজয়ের ব্যবধানই কমিয়েছে।

টাইটানসের হয়ে আবু জায়েদ রাহি ও বেনি হাওয়েল ২টি করে উইকেট নিয়েছেন। মাহমুদউল্লাহর ঝুলিতে গেছে একটি উইকেট।

এর আগে নাজমুল হোসেন শান্ত ও মিচেল ক্লিঞ্জারের ব্যাটে দ্রুতগতির ৫৫ রানের শুরু পায় টাইটানসরা। ৬ ওভারের জুটিটি ভাঙে শান্ত বোল্ড হওয়ার মধ্য দিয়ে। ফেরার আগে ৪ চার ও ২ ছয়ে ২১ বলে ৩৭ রানের অবদান রেখে গেছেন তরুণ বাঁহাতি।

ক্লিঞ্জার পরে মাহমুদউল্লাহর সঙ্গে ৩২ রান যোগ করেন। ফিরেছেন একটি করে চার-ছয়ে ২৯ রানে। মাহমুদউল্লাহও বেশিক্ষণ টেকেননি। একটি করে চার-ছয়ে ২৩ বলে ২৩ রানের অবদান তিনে নেমে পড়া অধিনায়কের।

পরে নিকোলাস পুরান (৮) দ্রুত ফিরে গেলে রানের গতিও কমে আসে টাইটানসদের। সেখান থেকে দেড়শ পেরোনো সংগ্রহের রাস্তা করে দেন আরিফুল হক ও কার্লোস ব্র্যাথওয়েট। দুজনে ৪ ওভারের ঝড়ে ৪৭ রান যোগ করেন।

ব্র্যাথওয়েট ৩ চার ও এক ছয়ে ১২ বলে ২২ রানে রানআউট হয়ে সাজঘরে হাঁটা দেন। আরিফুল শেষপর্যন্ত লড়ে ফেরেন ৪ চার ও এক ছয়ে ২১ বলে ৩৫ রানে।

কুমিল্লার হয়ে ৩ উইকেট নিয়ে সেরা আল-আমিন হোসেন, অবশ্য ৪ ওভারে ৫২ রান খরচ করে ব্যয়বহুলও আগের ম্যাচেই বোলিং অ্যাকশন নিয়ে প্রশ্নবিদ্ধ হওয়া এই পেসার।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

ফল: ১৪ রানে জয়ী খুলনা টাইটান্স।

খুলনা টাইটান্স ইনিংস: ১৭৪/৬ (২০ ওভার)

(নাজমুল হোসেন শান্ত ৩৭, মাইকেল কলিঙ্গার ২৯, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ২৩, নিকোলাস পুরান ৮, আরিফুল হক ৩৫, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট ২২, বেনি হাওয়েল ৯*; মেহেদী হাসান ০/৩২, শোয়েব মালিক ১/২৫, আল-আমিন হোসেন ৩/৫২, গ্রায়েম ক্রেমার ০/২৩, মেহেদী হাসান রানা ০/৩৩, সলোমান মায়ার ১/৪)।

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ইনিংস: ১৬০/৭ (২০ ওভার)

(তামিম ইকবাল ৩৬, সলোমন মায়ার ০, ইমরুল কায়েস ২০, জস বাটলার ১১, শোয়েব মালিক ৩৬, মারলন স্যামুয়েলস ২৫*, গ্রায়েম ক্রেমার ০, রকিবুল হাসান ১৭, মেহেদী হাসান রানা ১*; মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ১/২২, আবু জায়েদ রাহি ২/৩৫, আফিফ হোসেন ০/১৯, বেনি হাওয়েল ২/৩২, কার্লোস ব্র্যাথওয়েট ১/১৫, মোহাম্মদ ইরফান ১/২৬)।

প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ: আরিফুল হক (খুলনা টাইটান্স)।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here