চন্ডিকা হাথুরুসিংহের পর কে হচ্ছন মাশরাফি-সাকিবদের কোচ? এ বিষয়টি এখন কোটি টাকার এক প্রশ্ন হয়ে দাঁড়িয়েছে। আগের দিন সন্ধ্যায় ঢাকায় পা রাখা রিচার্ড পাইবাস বুধবার বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের (বিসিবি) কর্মকর্তাদের সঙ্গে সাক্ষাৎকার দিতে এসেছিলেন। বিসিবির শীর্ষ কর্মকর্তাদের সামনে তুলে ধরেছেন নিজের নতুন কর্ম-পরিকল্পনা। পাইবাসের প্রেজেন্টেশনে মুগ্ধ হয়েছেন স্বয়ং বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন। আর তা যদি বাস্তবায়ন করতে পারলে দেশের ক্রিকেট অনেক এগিয়ে যাবেও বলে মনে করেন বিসিবি সভাপতি।

২০১২ সালে পাইবাসের সঙ্গে বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের ‘সম্পর্কটা পাঁচ মাসও  টেকেনি। শুধু বাংলাদেশ-অধ্যায় শেষ করে থামেননি তিনি, বিসিবির বিপক্ষে তার অভিযোগের শেষ ছিল না। তবে এবার পরিপ্রেক্ষিত অন্য রকম বলে মনে করছেন পাইবাস নিজে। পাঁচ বছরের ব্যবধানে পাইবাসকেই বেশি আগ্রহী মনে হচ্ছে বাংলাদেশ দলের দায়িত্ব পাওয়ার ব্যাপারে।

বুধবার দুপুরে বিসিবিতে নিজের পরিকল্পনা তুলে ধরেন পাইবাস। আর  সে পরিকল্পনা মনে ধরেছে বিসিবি সভাপতি নাজমুলের, ‘পাইবাসের  প্রেজেন্টেশন অবশ্যই ভালো। এটা নিয়ে  কোনো সন্দেহ নাই। তবে অনেক দূরের ভবিষ্যত নিয়ে কথা বলেছে। ১০ বছরের একটা পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করবে। ও লম্বা সময়ের পরিকল্পনা নিয়ে এসেছে। কিন্তু আমাদের লং টার্ম, শর্ট টার্ম দুটোই দেখতে হবে। সামনে বিশ্বকাপ আছে,  সেটাও আমাদের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। ও যা চায়,  যেমন চায় এখনই হয়তো সব পারবো না। তবে  শেষ পর্যন্ত ওই পরিকল্পনা কাজে লাগাতে পারলে বাংলাদেশের জন্যই ভালো হবে।’

পাইবাসের সঙ্গে বিসিবির আগের অধ্যায় কতটা তিক্ততায় ভরা ছিল, সেটি অজানা নয় নাজমুলের। ইংল্যান্ডে জন্ম  নেওয়া এই দক্ষিণ আফ্রিকান  কোচ  কেন তখন বিসিবির বিরুদ্ধে বিষোদ্গার করেছিলেন, সেটিও তাকে জিজ্ঞেস করা হয়েছে বুধবার। উত্তরে পাইবাস কী বলেছেন,  সেটি অবশ্য সংবাদমাধ্যমকে বলতে চাইলেন না নাজমুল। বরং এড়িয়ে  গেলেন ‘আগের  বোর্ডের বিষয়’ বলে।

তবে এবার পাইবাস নিজ  থেকেই  কেন বাংলাদেশ দলের  কোচ হতে আগ্রহী, সেটির ব্যাখ্যা অবশ্য দিয়েছেন নাজমুল,‘ সে শতভাগ নিজ  থেকেই আগ্রহ প্রকাশ করেছে। তার কাছে মনে হয়েছে বাংলাদেশ দল এখন ভালো করছে। দলটা একটা পর্যায়ে  পৌঁছেছে। এখন  যেভাবে বাংলাদেশের ক্রিকেট চলছে, শুধু  সে নয়, অন্যান্য  পেশাদার কোচও বিসিবির সঙ্গে কাজ করতে চায়।’

বাংলাদেশ জাতীয় দলের কোচ হওয়ার দৌড়ে এগিয়ে থাকলেও পাইবাসই যে মাশরাফি-সাকিবদের কোচ হচ্ছেন, সেটি এখনো নিশ্চিত নয়। ৯ ডিসেম্বর বিসিবিকে সাক্ষাৎকার  দেয়ার কথা ওয়েস্ট ইন্ডিজ ও আয়ারল্যান্ডের সাবেক  কোচ ফিল সিমন্সের। তারপর বোর্ড মিটিংয়ে সবার সঙ্গে আলোচনা করার পর বাংলাদেশের কোচ চূড়ান্ত করা হবে বলে জানিয়েছেন নাজমুল হাসান পাপন।

এদিকে আগামী জানুয়ারির শুরুতেই বাংলাদেশ সফরে আসবে শ্রীলঙ্কা। যে দলটির বর্তমান কোচ বাংলাদেশের সদ্য সাবেক হওয়া কোচ হাথুরুসিংহে। তাই এ সিরিজই সাকিব-মাশরাফিদের জন্য বিশেষ এক সিরিজ। এ সিরিজের আগেই বাংলাদেশের  কোচ নিয়োগের প্রাণপণ চেষ্টা করছে বিসিবি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here