লিগ ওয়ানে নিজেদের শেষ ম্যাচে মৌসুমের প্রথম হারের স্বাদ পাওয়া পিএসজি চ্যাম্পিয়ন্স লিগে এসে হেরেছে বায়ার্ন মিউনিখের কাছে। মঙ্গলবার রাতে জার্মান জায়ান্টরা ৩-১ গোলে হারিয়েছে ফরাসি জায়ান্টদের। গ্রুপপর্বের প্রথম দেখায় পিএসজির মাঠ থেকে ৩-০ গোলে হেরে এসেছিল বায়ার্ন।

আলিয়াঞ্জ অ্যারেনায় মঙ্গলবার রাতে প্রতি আক্রমণ থেকে অষ্টম মিনিটে বায়ার্নকে এগিয়ে নেন লেভানদোভস্কি। চলতি মৌসুমে সব ধরনের প্রতিযোগিতায় এই স্ট্রাইকারের ২০তম গোলে দারুণ অবদান হামেস রদ্রিগেসের।

কলম্বিয়ান মিডফিল্ডার বাইলাইন থেকে কাট ব্যাকে বল দেন দাভিদ আলবাকে। তার হেড খুঁজে পায় অরক্ষিত লেভানদোভস্কি। বাকিটুকু সহজেই সারেন পোলিশ তারকা। ব্রাজিল অধিনায়কের ফ্রি-কিক থেকে ২৩তম মিনিটে গোল পরিশোধের খুব কাছে যায় পিএসজি। সেবার একটুর জন্য লক্ষ্যে থাকেনি নেইমারের শট।

৩৪তম মিনিটে নেইমারের দারুণ প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয় সভেন উলরিখের নৈপুণ্যে। সেবার ঝাঁপিয়ে কর্নারের বিনিময়ে রক্ষা করেন এই গোলরক্ষক। ৪৩তম মিনিটে আবার নেইমারকে হতাশ করেন তিনি।

পিএসজির দুই প্রচেষ্টার মাঝে ৩৭তম মিনিটে ব্যবধান বাড়ান তোলিসো। এই গোলেও দারুণ অবদান ছিল রদ্রিগেসের। ডি-বক্সে তার অসাধারণ ক্রসে ফরাসি ফরোয়ার্ডের দারুণ হেড জালে জড়ায়। গোলের জন্য মরিয়া পিএসজি ব্যবধান কমায় দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে। ৫০তম মিনিটে কাভানির থেকে বল পেয়ে খুব কাছ থেকে লক্ষ্যভেদ করেন এমবাপে।

১০ মিনিট পর সমতা ফেরানোর সুবর্ণ সুযোগ হাতছাড়া করেন মার্কো ভেরাত্তি। অরক্ষিত ফরোয়ার্ড বিপজ্জনক জায়গায় বল পেয়েও গোলরক্ষক বরাবর শট নেন।

প্রতি আক্রমণ থেকে ৬৯তম মিনিটে আবার ব্যবধান বাড়ান তোলিসো। স্বদেশি ফরোয়ার্ড কোমানের কাছ থেকে বল পেয়ে কোনাকুনি শটে বল পাঠান তিনি। বাকি সময়ে গোলের দেখা পায়নি কোনো দলই।

গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচে ৩-১ গোলে পিএসজিকে হারিয়েছে বায়ার্ন। রবের্ত লেভানদোভস্কি এগিয়ে নেওয়ার পর জোড়া গোল করেন কোরোঁতাঁ তোলিসো। মাঝে ব্যবধান কমান কিলিয়ান এমবাপে।

হেরেও অবশ্য ‘বি’ গ্রুপের সেরা পিএসজি। ৬ ম্যাচে ৫ জয়ে ১৫ পয়েন্ট তাদের। বায়ার্নের পয়েন্টও ১৫। তবে মুখোমুখি লড়াইয়ে সেরা পিএসজি।

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here