জনসন চার্লসের সেঞ্চুরির পর দুর্দান্ত বোলিংয়ে বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগের (বিপিএল) এবারের আসরের ফাইনাল নিশ্চিত করেছে রংপুর রাইডার্স। সোমবার দ্বিতীয় কোয়ালিফায়ার ম্যাচে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে হারিয়েছে তারা ৩৬ রানে। যাতে লিগ পর্বে টেবিলের শীর্ষে থেকে দুইবার ফাইনালে যাওয়ার মিশনে নেমেও কুমিল্লাকে ফিরতে হলো খালি হাতে। বিপরীতে এলিমিনেটর ম্যাচ জিতে কোয়ালিফায়ারের বাধা পেরিয়ে ফাইনাল মঞ্চে রংপুর। শিরোপা নির্ধারণী ম্যাচে মঙ্গলবার তাদের প্রতিপক্ষ ঢাকা ডায়নামাইটস।

১৯৩ অনেক বড় টার্গেট। শুরুটা ভালোই হয়েছিল কুমিল্লার। ৫ ওভারের আগেই তামিম- লিটন মিলে তুলে ফেলেন ৫৪ রান। কিন্তু এরপরই টপাটপ কয়েকটা উইকেটের পতন। প্রথমে ১৯ বলে ৩৬ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে বিদায় নেন তামিম। এরপরই ০তে আউট হন ইমরুল। ব্যস, চাপে পড়ে যায় কুমিল্লা।

শোযেব মালিক যে কোনো পরিস্থিতিতে ম্যাচ বের করে নিয়ে আসতে জানেন। তাঁর দিকে তাকিয়ে ছিল দল। কিন্তু ১৪ বলে মাত্র ১০ রান করে এদিন হতাশ করেন তিনি।এরপর ২৮ বলে ৩৯ করে ফিরেন লিটন দাস।

শেষ ভরসা ছিলেন মারলন স্যামুয়েলস ও জস বাটলার। তাঁরা চেষ্টাও করেছিলেন।কিন্তু পারেননি। ১৬ বলে ২৬ করে বিদায় নেন বাটলার।এরপরই ৩০ বলে ২৭ রান করে আউট হন স্যামুয়েলস। শেষমেশ রানে অলআউট হয়ে যায় কুমিল্লা। রংপুরের পক্ষে রুবেল ৩ উইকেট নেন।

এর আগে চার্লসের ৬৩ বলে ১০৫ ও ম্যাককালামের ৪৬ বলে ৭৮ রানের তুখোড় ইনিংসে ভর করে ৩ উইকেটে ১৯২ রান তুলে রংপুর রাইডার্স।

রবিবার ৭ ওভার শেষে এক উইকেটে ৫৫ রান ছিল রংপুর রাইডার্সের। আগের দিনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী এখান থেকেই খেলা শুরু হয় সোমবার সন্ধ্যায়।

টানা চার ম্যাচে ব্যর্থতার পর সময়মত জ্বলে ওঠেন ক্যারিবিয়ান মারকুটে ওপেনার জনসন চার্লস। আগের রাতে ৪৬ রানে নট আউট ছিলেন তিনি। ছিলেন রুদ্রমূতিতে। আজ শুরু করেন সেখান থেকেই। চার্লসের বিধ্বংসী ব্যাটিংয়ে কুমিল্লার বোলিং খড়কুটোর মতো উড়ে যায়। ৩৪ বলে পূরণ করেন হাফ সঞ্চুরি।

হাফ সেঞ্চুরিতেই থেমে থাকেননি চার্লস। ধেই ধেই করে রান তুলতে থাকেন। ৬২ বলে তুলে নেন বিপিএলে তার প্রথম সেঞ্চুরিটা। চলতি বিপিএলে এটা দুই নম্বর সেঞ্চুরি। প্রথমটি করেছিলেন চার্লসের স্বদেশী গেইল। শেষমেশ অপরাজিত থাকেন চার্লস। করেন ৬৩ বলে ১০৫ রান ( ৭ ছক্কা, ৯ চার)।

ওদিকে বিপিএলে টানা ফ্লপ কিউই মারকুটে ব্যাটসম্যান ব্রেন্ডন ম্যাককালাম সময় নিলেন সেট হতে। এরপর শুরু করলেন ঝড়। দেখালেন আসল চেহারা। ৩৩ বলে ৫ ছ্ক্কায় তুলে নেন বিপিএলে নিজের প্রথম হাফ সেঞ্চুরিটা। চার্লসের মতো তিনিও থামেননি হাফসেঞ্চুরিতে। ৪৬ বলে ৭৮ রানের (৯ ছক্কা ও ১ চার) তুখোড় ইনিংস খেলে আউট হন ব্রেন্ডন।

বোলিংয়ে বড়ই হতাশার রাত কুমিল্লার। একটি করে উইকেট নেন হাসান আলী, মেহদেী হাসান ও সাইফউদ্দিন।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

রংপুর রাইডার্স : ২০ ওভারে ১৯২/৩ (চালর্স ৬৩ বলে ১০৫*, গেইল ৩, ম্যাককালাম ৪৬ বলে ৭৮; মেহেদী হাসান ১/৪৪, হাসান আলী ১/২৩, সাইফুদ্দিন ১/৩৮)

কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স : ২০ ওভারে ১৫৬/১০( তামিম ৩৬, লিটন ৩৯, ইমরুল ০, শোয়েব মালিক ১০, স্যামুয়েলস ২৭, বাটলার ২৬ ; উদানা ২/২৪, বোপারা ২/১৭, সোহাগ গাজী ১/১৫, রুবেল ৩/৩৫, মাশরাফি ১/৪০, নাজমুল ১/২৫)

ফল : রংপুর রাইডার্স ৩৬ রানে জয়ী

 

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here