আমেরিকার পক্ষ থেকে জেরুজালেম আল-কুদসকে ইসরাইলের রাজধানী হিসেবে স্বীকৃতি দেয়ার প্রতিবাদে অবরুদ্ধ গাজা উপত্যকার অধিবাসীরা মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ও সৌদি রাজা সালমানের ছবিতে আগুন দিয়েছে।

ট্রাম্পের ঘোষণার প্রতিবাদ জানাতে রোববার ফিলিস্তিনের স্বাধীনতাকামী পপ্যুলার ফ্রন্ট গাজা শহরে এক বিক্ষোভ মিছিলের ডাক দেয়। মুসলমানদের প্রথম ক্বেবলাসমৃদ্ধ শহর জেরুজালেমের প্রতি অবমাননার প্রতিবাদ জানাতে হাজার হাজার গাজাবাসী বিক্ষোভ মিছিলে অংশ নেয়।

বিক্ষোভকারীরা মার্কিন ও ইসরাইলি পতাকার পাশাপাশি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রতিকৃতিতে আগুন দেন। সেইসঙ্গে তারা সৌদি রাজা সালমান বিন আব্দুলআজিজ ও যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমানের ছবিও আগুন দিয়ে জ্বালিয়ে দেন।

ইহুদাবাদী ইসরাইল গোটা জেরুজালেম শহরকে নিজের রাজধানী বলে দাবি করে। অন্যদিকে ফিলিস্তিনিরা পূর্ব জেরুজালেমকে তাদের সম্ভাব্য রাষ্ট্রের রাজধানী হিসেবে দেখতে চায়।

গাজা উপত্যকায় অনুষ্ঠিত বিক্ষোভে পপ্যুলার ফ্রন্টের শীর্ষস্থানীয় নেতা জামিল মাজহার বলেন, “আল-কুদস হচ্ছে ফিলিস্তিনের চিরন্তন রাজধানী এবং এই নগরীর এক ইঞ্চি ভূমিও ইসরাইলকে দেয়া হবে না।”

জেরুজালেম আল-কুদসকে দখলদার ইসরাইলের রাজধানী করার মার্কিন ও ইহুদিবাদী প্রচেষ্টায় সৌদি আরবসহ আরো কিছু আরব দেশের ইন্ধন দেয়ার তীব্র নিন্দা জানান বিক্ষোভকারীরা। এ সময় তাদের হাতে ‘সৌদি রাজতন্ত্র ধ্বংস হোক’ লেখা প্ল্যাকার্ড শোভা পায়।

ইহুদিবাদী ইসরাইলের সাবেক অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা উপদেষ্টা ইয়াকোভ নাজেল গতমাসে বলেছেন, “তেল আবিবের সঙ্গে গোপন সম্পর্ক শক্তিশালী করতে চায় সৌদি আরব। এ কাজে রিয়াদ ফিলিস্তিনি জনগণের ন্যায়সঙ্গত অধিকার পদদলিত করতেও প্রস্তুত রয়েছে।”

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here