সাফ অনূর্ধ্ব-১৫ নারী চ্যাম্পিয়নশিপে গ্রুপ পর্বে নিজেদের শেষ ম্যাচেও জয় পেল বাংলাদেশ। এবার শক্তিশালী ভারতকে ৩-০ গোলে হারিয়ে রাউন্ড রবিন লিগে টানা তৃতীয় জয় তুলে নিল বাংলাদেশি কিশোরিরা।

আসরের দুই ফাইনালিস্ট। তাই মহড়ার শুরুটা ছিল সমানে সমান। নেপাল ও ভুটান ম্যাচে অলস সময় কাটানো গোলরক্ষক মাহমুদা আখতারকে প্রথম ১৫ মিনিট টুকটাক ব্যস্ত থাকতে হয়েছে। এরপর ক্রমেই ম্যাচের দখল নিজেদের দিকে নিয়েছে স্বাগতিক কিশোরীরা।

নিয়মিত একাদশ থেকে এদিন তিন ফরোয়ার্ড আনুচিং মগিনি, মার্জিয়া ও তহুরাকে বসিয়ে সাজেদা, শামসুন নাহার ও ঋতু পর্ণা চাকমাকে মূল একাদশে রাখেন কোচ ছোটন।

প্রথম ১৫ মিনিটের মধ্যেই তিনটি সহজ সুযোগ নষ্ট হয়েছে বাংলাদেশের। ৮ মিনিটে সুবিধাজনক জায়গায় বল পেয়েও লক্ষ্যের বাইরে মারেন সাজেদা। ১৩ মিনিটে এই সাজেদার রক্ষণচেরা পাস ফাঁকায় পেয়ে বার উঁচিয়ে বাইরে পাঠান মিডফিল্ডার শামসুন নাহার।

নিয়মিত একাদশে সুযোগ পেয়েও কাজে লাগাতে পারেননি সাজেদা। ম্যাচের ২৩ মিনিটে চোটে খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে মাঠ ছাড়তে হয়েছে এই ফরোয়ার্ডকে। তার বদলি হয়ে মাঠে নেমেই বাংলাদেশকে এগিয়ে নেন আনুচিং মগিনি। ৩২ মিনিটে মনিকা চাকমার কর্নার শট মাথা ছুঁয়ে বল জালে জড়িয়ে দেন খাগড়াছড়ির ফুটবলকন্যা।

পরের দুই মিনিটেই হ্যাটট্রিকের দারুণ সুযোগ হাতছাড়া আনুচিংয়ের। ৩৪ ও ৩৫ মিনিটে দুবার ভারতীয় গোলরক্ষককে একা পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ লাল-সবুজ ফরোয়ার্ড।

বাংলাদেশের দ্বিতীয় গোলটি এসেছে দুই শামসুন নাহারের মেলবন্ধনে। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে ডি-বক্সে মিডফিল্ডার শামসুন নাহারকে ভারতীয় খেলোয়াড়রা ধাক্কা দিলে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। পরে স্পটকিকে বাংলাদেশকে এগিয়ে নেন ডিফেন্ডার শামসুন নাহার।

আগের দুই ম্যাচে দারুণ খেলেও গোলবঞ্চিত ছিলেন মনিকা চাকমা। ভারতের বিপক্ষে এদিন গোল করে ক্ষুধা মিটিয়েছেন তিনি। ৫৪ মিনিটে আনাই মগিনির ডিফেন্সচেরা পাসে ভারতীয় গোলরক্ষককে বোকা বানিয়ে বল জালে জড়িয়ে লাল-সবুজদের দুর্দান্ত জয় নিশ্চিত করেন অনূর্ধ্ব-১৫ প্লে-মেকার।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here