আগামী ২৫ ডিসেম্বর ৫৩তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করবে বাংলাদেশ টেলিভিশন। এই উপলক্ষে রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন চ্যানেলটি ইউটিউবের সাথে যুক্ত হবে। এর আগে সামাজিক মাধ্যম ফেসবুক ও টুইটারের সাথে যুক্ত হয়েছিল বিশ্বের প্রথম বাংলা টেলিভিশনটি। এই সংযোজনের ফলে দর্শক বিটিভির জনপ্রিয় সব অনুষ্ঠান ইউটিউব চ্যানেলে দেখতে পারবে।

২৫ ডিসেম্বর অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত এই অনুষ্ঠান লাইভ স্ট্রিমিংয়ের মাধ্যমে ইউটিউব চ্যানেলের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম উদ্বোধন করবেন। ইউটিউব চ্যানেলে বিটিভির চলমান সব অনুষ্ঠান তো থাকছেই, সাথে থাকছে আগের সব নাটক, গান ও ম্যাগাজিন অনুষ্ঠানের মূল কপি। প্রাথমিকভাবে চ্যানেলে যোগ হয়েছে ধারাবাহিক নাটক কোথাও কেউ নেই, বহুব্রীহি, সংশপ্তক, এইসব দিনরাত্রি, ঢাকায় থাকি। জনপ্রিয় আরো অনুষ্ঠান পরে যোগ হবে এই চ্যানেলে।

বিটিভির আর্কাইভে সংরক্ষিত সব অনুষ্ঠানই পর্যায়ক্রমে এতে যুক্ত হবে। এজন্য আর্কাইভের ফিল্ম বা বেটা-ক্যাসেট থেকে ভিডিও রূপান্তরের কাজ চলছে। সুপ্রভাত বাংলাদেশ, গান চিরদিন, গল্প নয় সত্যি, উদ্ভাবকের দেশ-এর মতো এখনকার অনুষ্ঠানগুলোও দর্শক দেখতে পাবেন এই চ্যানেলে।

পুরো প্রক্রিয়ার দায়িত্বে আছেন বিটিভির ঢাকা কেন্দ্রের মহাব্যবস্থাপক মো. মাসুদুল হক। তিনি বলেন, নতুন প্রযুক্তির সাহায্য নিয়ে বাংলাদেশের ইতিহাস ও ঐতিহ্যকে দর্শকের কাছে পৌঁছে দিতে চান তারা। বিটিভির মহাপরিচালক এস এম হারুন-অর-রশীদ বলেন, বাংলাদেশের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্য ধারণ করে বিটিভি। দেশের উন্নয়ন-অগ্রগতিতে এর আছে অনুঘটকের ভূমিকা। এ কাজগুলোকে আরো এগিয়ে নিতেই সামাজিক মাধ্যমে কাজের পরিধি বাড়াচ্ছে বিটিভি, যাতে আরো বেশি মানুষের কাছে সহজে পৌঁছানো যায়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here