রংপুর সিটি করপোরেশন (রসিক) নির্বাচনে দলীয় প্রার্থীর বড় ব্যবধানে পরাজয়ের কারণ খুঁজে বের করার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। গণভবনে শনিবার রাতে শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত দলের সভাপতিমণ্ডলীর সভায় তিনি এই নির্দেশ দেন বলে জানা গেছে।

রসিক নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী হারলেও বৈঠকে সন্তোষ প্রকাশ করেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যরা। তারা বলেন, রংপুর সিটি করপোরেশন নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হারলেও একটি সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হওয়ায় সরকারের ভাবমূর্তি উজ্জ্বল হয়েছে।

বৈঠকে উপস্থিত একাধিক কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, ‘রসিকে এত বড় ব্যবধানে কেন দলের প্রার্থী হারলেন, এ বিষয়ে খোঁজ-খবর নিতে দলীয় নেতাদের নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। একইসঙ্গে প্রার্থী নির্বাচনে ভুল ছিল কি না, কারা দলীয় প্রার্থীকে অসহযোগিতা করেছেন, এসব বিষয়েও প্রতিবেদন দিতে বলেছেন তিনি।’ তারা বলেন, রসিক নির্বাচনে দলের পরাজয়কে বড় করে দেখছে না আওয়ামী লীগ। তবে নির্বাচনে বড় ব্যবধানের পরাজয় অপ্রত্যাশিত ছিল।

দলীয় প্রধান শেখ হাসিনা বৈঠকে নেতাকর্মীদের ‘ওভার কনফিডেন্ট’ (অতি আত্মবিশ্বাস) হতে নিষেধ করেছেন বলেও জানান সভাপতিমণ্ডলীর বৈঠকে উপস্থিত নেতারা। তারা বলেন, ওভার কনফিডেন্ট ক্ষতির কারণ হতে পারে বলেও মন্তব্য করেছেন প্রধানমন্ত্রী।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন নির্বাচনের প্রার্থী নিয়েও এই বৈঠকে আলোচনা হয়েছে বলে জানিয়ে একজন কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, ‘ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনে গ্রহণযোগ্য প্রার্থী দেওয়া হবে। আমাদের কাছে অনেক প্রার্থীর নাম এসেছে। কিন্তু নির্বাচনি তফসিল ঘোষণার পরই আমরা প্রার্থীর নাম ঘোষণা করব। জনগণের প্রত্যাশা পূরণ হওয়ার মতো প্রার্থী দেওয়া হবে।’

জানুয়ারি থেকে আওয়ামী লীগ সাংগঠনিক জেলা সফরে বের হবে উল্লেখ করে বৈঠকে উপস্থিত দলের একজন কেন্দ্রীয় নেতা বলেন, ‘এই জেলা সফর আগামী নির্বাচনের প্রস্তুতিরও অংশ।’

তিনি বলেন, ‘৫ জানুয়ারি গণতন্ত্র রক্ষা দিবস পালন করা হবে। এছাড়া ১০ জানুয়ারি বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসেরও অনুষ্ঠান থাকবে দলের। সেখানে বিএনপি-জামায়াতের জ্বালাও-পোড়াও ধ্বংসযজ্ঞের চিত্র ফোকাস পয়েন্টে থাকবে। এখন থেকে আগামী নির্বাচন পর্যন্ত বিএনপি-জামায়াতের ধ্বংসযজ্ঞের চিত্র বার বার জনগণের সামনে তুলে ধরার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে সভায়।’

বৈঠকে আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ছাড়া আরও উপস্থিত ছিলেন, সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, মতিয়া চৌধুরী, কাজী জাফরউল্লাহ, সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম, অ্যাডভোকেট সাহারা খাতুন, ড. আবদুর রাজ্জাক, ফারুক খান, আবদুল মতিন খসরু, রমেশচন্দ্র সেন ও আবদুল মান্নান খান প্রমুখ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here