জম্মু-কাশ্মির সীমান্তে ভারত-পাকিস্তানের সেনাবাহিনীর মধ্যে পাল্টাপাল্টি গুলিবর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার জম্মু-কাশ্মিরের রাজৌরি জেলার নৌশেরা সেক্টরে পাকিস্তানের দিক থেকে ভারী গুলিবর্ষণ করা হলে ভারতীয় সেনারাও পাল্টা গুলি চালিয়ে জবাব দেয়।

সীমান্তে একনাগাড়ে কয়েকদিন ধরে গোলাগুলিবর্ষণের ফলে বেশকিছু মানুষজন বাড়িঘর ছেড়ে নিরাপদ স্থানে আশ্রয় নিয়েছেন। এছাড়া, ৭ টি স্কুল বন্ধ রাখা হয়েছে।

পাক বাহিনীর গুলিবর্ষণের আওয়াজ নৌশেরা বাজার পর্যন্ত পৌঁছায় সাধারণ মানুষের মধ্যে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে। রাজৌরির জেলা প্রশাসক (ডিসি) শাহীদ চৌধুরী ভারী গুলিবর্ষণের কারণে নৌশেরার লাম এলাকায় ৭১টি স্কুল বন্ধ রাখার কথা নিশ্চিত করেছেন এবং মানুষজনের নিরাপত্তার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেয়ার হয়েছে বলে জানিয়েছেন।

এদিকে, বৃহস্পতিবার জম্মু-কাশ্মির সরকারের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, গত দু’বছরে (২০১৬/২০১৭) সীমান্ত এলাকায় ২৫ বেসামরিক ব্যক্তি নিহত ও ১৬২ জন আহত হয়েছে। এরমধ্যে ২০১৭ সালে ১২ জন নিহত ও ৭৯ জন আহত হন। আর ২০১৬ সালে ১৩ জন নিহত ও ৮৩ জন আহত হয়েছিলেন।

এছাড়া, রাজ্যটিতে সীমান্ত এলাকায় শেল ও গুলিবর্ষণের ঘটনায় ২২৪টি ঘরবাড়ি ও অবকাঠামো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। জম্মু, সাম্বা, কঠুয়া, রাজৌরি, পুঞ্চ, বান্দিপোরা, বারামুলা ও কুপওয়াড়া এলাকায় ওই ক্ষয়ক্ষতি হয়। ক্ষতির তালিকায় বান্দিপোরাতে দু’টি মসজিদ ও একটি স্কুলও আছে।

রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে অন্য এক পরিসংখ্যানে বলা হয়েছে, ২০১৭ সালে আন্তর্জাতিক সীমান্ত ও নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর ৫৯ জন সন্ত্রাসী ও অনুপ্রবেশকারী নিহত হয়েছে। ২০১৬ সালে ওই সংখ্যা ছিল ৩৫ জন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here