বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানকে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান করা হয়েছে। গঠনতন্ত্র অনুযায়ী দলীয় চেয়ারম্যান খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতে দলটির চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালন করবেন তিনি।

শুক্রবার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান দলটির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

তিনি বলেন, তারেক রহমান ও দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এবং স্থায়ী কমিটির সদস্যরা সমন্বয় করে এখন দল পরিচালনা করবেন।

প্রসঙ্গত জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ৫ বছর সাজাপ্রাপ্ত হয়ে বৃহস্পতিবার কারাগারে যান খালেদা জিয়া। একই মামলায় খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমানেও ১০ বছর জেল হয়। এমতাবস্থায় খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতে দলের চেয়ারম্যান পদটি ফাঁকা।

সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্টে কথিত দুর্নীতির মামলায় দেশের প্রধান বিরোধীদলের নেত্রী ও তিনবারের সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে বৃহস্পতিবার ৫ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছেন বিশেষ আদালত। এ মামলায় খালেদা জিয়ার জেল হবে, তাকে কারাগারে যেতে হবেই এমন কথা সরকারের মন্ত্রী-এমপি ও সরকারদলীয় নেতারা গত ২ বছর ধরেই বলে আসছেন। গতকাল বৃহস্পতিবার রায় ঘোষণার পরও দেখা গেছে সরকারের মন্ত্রীদের দেয়া বক্তব্যের সঙ্গে বিচারক ড. আখতারুজ্জামানের আদালতের রায়ের হুবহু মিল রয়েছে।

রিজভীর অভিযোগ প্রতিহিংসাপরায়ণ হয়ে কেবলমাত্র আদালতকে ব্যবহার করে নয়, সব রাষ্ট্রশক্তিকে ব্যবহার করে বেগম খালেদা জিয়া এবং বিএনপি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিরুদ্ধে রায় দেওয়া হয়েছে। কারাবন্দি করা হয়েছে খালেদা জিয়াকে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপির শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক ড. এ বি এম ওবায়দুল ইসলাম, সহ-শ্রম বিষয়ক সম্পাদক ফিরোজ উজ জামান মামুন মোল্লা, সহ-দফতর সম্পাদক বেলাল আহমেদ ও নির্বাহী কমিটির সদস্য আমিনুল ইসলাম প্রমুখ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here