স্কুলে ঢুকে পড়ে নির্বিচার গুলির ঘটনা রুখতে শিক্ষকদের কাছে অস্ত্র রাখার প্রস্তাব করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। অবশ্য অনেক আগে থেকেই একই মত দিয়ে আসছে দেশটির শক্তিশালী অস্ত্র সমর্থক গ্রুপ ন্যাশনাল রাইফেল এসোসিয়েশন।

গত সপ্তাহের ফ্লোরিডার স্কুলের ঘটনায় বেঁচে যাওয়া শিক্ষার্থী ও নিহতদের স্বজনেরা র‌্যালি করে ট্রাম্পের সঙ্গে দেখা করতে আসলে তিনি বলেন, শুধু গোপনে অস্ত্র বহন নয় তা চালানোর প্রশিক্ষণও থাকা উচিত তাদের। ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়েছে ট্রাম্পের এই প্রস্তাবকে হাত তালি দিয়ে স্বাগত জানিয়েছেন শিক্ষার্থী ও অভিভাবকেরা।

গত সপ্তাহে ফ্লোরিডার মেজরিটি ডগলাস হাইস্কুলে ঢুকে পড়ে সাবেক এক শিক্ষার্থীর নির্বিচারে চালানো গুলিতে নিহত হয় ১৭ জন। এ ধরনের ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঠেকানোর দাবিতে ওই ঘটনায় বেঁচে যাওয়া শিক্ষার্থী ও স্বজনেরা ফ্লোরিডা থেকে ওয়াশিংটনে আসেন। ওয়াশিংটনের সাবওয়ে থেকে র্যা লি নিয়ে হোয়াইট হাউসে পৌঁছালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট তাদের সঙ্গে এক্সিকিউটিভ ম্যানসনের ডাইনিং হলে সাক্সাৎ করেন। ঘণ্টাব্যাপী ওই সাক্ষাতে রিপাবলিক্যান প্রেসিডেন্ট অস্ত্র কেনার ক্ষেত্রে পূর্বের কার্যকলাপ আরও ভালোভাবে খতিয়ে দেখা হবে বলে জানান।

ট্রাম্প বলেন, আমরা পূর্বের কার্যকলাপ খতিয়ে দেখার ক্ষেত্রে আরও কঠোর হবো। অস্ত্র ক্রয়কারীদের মানসিক স্বাস্থ্যের ওপরও জোর দেওয়া হবে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট শিক্ষকদের অস্ত্র রাখার পক্ষে মত দেন। অবশ্য শক্তিশালী অস্ত্র সমর্থক গ্রুপ ন্যাশনাল রাইফেল এসোসিয়েশন অনেক আগে থেকেই এই মত দিয়ে আসছে। অস্ত্রের ব্যবহার বিস্তৃত করতে আইন প্রণেতাদের নানাভাবে প্ররোচিত করে গ্রুপটি লবি গ্রুপ নামে পরিচিত।

ফ্লোরিডার শিক্ষার্থীদের তিনি বলেন, যদি তোমাদের একজন অস্ত্রে পারদর্শী শিক্ষক থাকতো তাহলে এই আক্রমণ খুব তাড়াতাড়ি শেষ করে দেওয়া যেত।

শিক্ষকের কাছে লুকানো অবস্থায় অস্ত্র থাকতে পারে মত দিয়ে এর বৈপরিত্যও তুলে ধরেন ট্রাম্প। বলেন, তাদেরকে বিশেষ প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে যেতে হবে আর তোমাদের কোনও বন্দুকমুক্ত এলাকায় থাকা হবে না।

ফ্লোরিডার স্কুলে ওই গুলির ঘটনার পর অস্ত্র আইন সংশোধনে সংঘবদ্ধ আন্দোলনে নেমেছেন মার্কিন তরুণেরা। শিকাগো, ইলিনয়, পিটসবার্গ, পেনিনসুলা, ফিনিক্স, এরিজোনার শিক্ষার্থীরাও ফ্লোরিডার শিক্ষার্থীদের প্রতি সহমর্মিতা জানিয়ে ক্লাসের বাইরে বের হয়ে আসে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here