নানা চড়াই-উৎরাই পার করে নিদাহাস ট্রফির ফাইনালে উঠে গেছে বাংলাদেশ। গতকাল শুক্রবার স্বাগতিক শ্রীলঙ্কাকে দুই উইকেটে হারিয়ে ফাইনালের টিকিট পায় টাইগাররা। যদিও স্বাগতিকরা ভেবেছিল তারাই খেলবে ফাইনাল। আর তাইতো সেমিফাইনাল শেষ হওয়ার আগেই ভারত-শ্রীলঙ্কার ফাইনাল ম্যাচ উপলক্ষে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড স্টেডিয়ামের অতিথিদের গাড়ির গেট পাস তৈরি করে ফেলেছিল।

ইতিমধ্যে সেই পাসটি এখন ভাইরাল। যেখানে দেখা যাচ্ছে আগামী ১৮ মার্চ ফাইনালে ভারতের প্রতিপক্ষ শ্রীলঙ্কা। ঘটনাটি নিয়ে শুক্রবার বাংলাদেশ-শ্রীলঙ্কার ম্যাচ শেষে ফেসবুকে একটি ছবি পোস্ট করেন টাইগার দলের সাবেক অধিনায়ক এবং বিসিবির পরিচালক নাঈমুর রহমান দুর্জয়। টাইগার দলের সাথে এখন শ্রীলঙ্কায় রয়েছেন তিনি।

তার ওই পোস্টে তিনি প্রশ্নবোধক চিহ্ন দিয়ে লেখেন- ‘ফাইনাল?’ এরপর থেকেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উঠে সমালোচনার ঝড়। অনেকেই প্রশ্ন তোলেন তাহলে কি বাংলাদেশকে হারাতে সব আয়োজনই করে রেখেছিল লঙ্কানরা।

নির্ধারণের আগেই ভারত-শ্রীলঙ্কার ফাইনাল ম্যাচ উপলক্ষে শ্রীলঙ্কা ক্রিকেট বোর্ড স্টেডিয়ামের অতিথিদের গাড়ির গেট পাস

এতো গেল মাঠের বাইরের ষড়ষন্ত্র। খেলার ফলাফল যেহেতুই মাঠেই নির্ধারিত হবে তাই বাংলাদেশকে জোর করে হারাতে আয়োজন ছিল মাঠেও। ম্যাচে বাংলাদেশ ইনিংসের শেষ ওভারের প্রথম বলটি ওয়ান বাউন্স সিগন্যাল দেন আম্পায়ার। দ্বিতীয় বলটি প্রথম বলের চেয়ে আরও উপর দিয়ে চলে যায়। কিন্তু আম্পায়ার নো দেননি। ক্রিজে থাকা মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ আম্পায়ারের কাছে নো বলের আবেদন জানালেও তাতে সাড়া দেননি আম্পায়ার। অথচ টিভি আম্পায়ারের রিপ্লাইতে স্পষ্টই দেখা যাচ্ছিল বলটি ‘নো’ ছিল।

ম্যাচ শেষে তামিম বললেন, আমরা লেগ আম্পায়ারকে নো বলের সিদ্ধান্ত নিতে দেখলাম (শেষ মুহূর্তে উনি হাত নামিয়ে নিয়েছেন)। কিন্তু পরে তিনি আর দেননি। আমরা সে সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ করেছিলাম।

এদিকে খেলার মাঝেই বাংলাদেশি সাপোর্টারদের সঙ্গে প্রচণ্ড খারাপ আচরণ করে শ্রীলঙ্কানরা। এমনকি কয়েকজনকে ধরে মরধরও করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর ম্যাচ হেরে খেলা শেষে টাইগারদের জন্য নির্ধারিত ড্রেসিংরুমটিও ভেঙে যায় ম্বাগতিক দর্শকরা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here