উৎসবমুখোর পরিবেশে চলছে বিয়ের অনুষ্ঠান। সেখানে আত্মীয়ের বিয়েতে গিয়ে আমন্ত্রিতদের সঙ্গে একটু নাচ করেছিল বাড়ির বউ। আর এই নাচই কাল হলো তার জন্য।

বিয়েবাড়ি থেকে ফেরার পরই গৃহবধূকে খুনের অভিযোগ উঠল স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ঘটেছে ভারতের দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তীতে।

বাসন্তীর চড়বিদ্যা গ্রামের বাসিন্দা সুবীর নস্করের সঙ্গে মাত্র মাস তিনেক আগেই বিয়ে হয়েছিল ১৮ বছরের স্বপ্নার।
ভারতীয় গণমাধ্যমের খবর, শুক্রবার রাতে স্বামী ও শাশুড়ির সঙ্গে চড়বিদ্যা গ্রামেই এক আত্মীয়ের বাড়িতে বিয়ের অনুষ্ঠানে যান স্বপ্না। সেখানেই নাকি বিয়ের বাড়িতে উপস্থিত বাকি আমন্ত্রিতদের সঙ্গে নাচ করেন স্বপ্না।

প্রত্যদর্শীরা জানান, বউকে এভাবে বিয়েবাড়িতে নাচতে দেখেই রেগে যান সুবীর। বিয়েবাড়ির মধ্যেই চিৎকার-চেঁচামেচি জুড়ে দেয় সে। তখনই মা ও বউকে নিয়ে বাড়ি ফিরে আসে সুবীর।

প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, বাড়ি ফেরার পরেও স্বপ্নার সঙ্গে তুমুল অশান্তি করে তার শাশুড়ি।

এরপরই শনিবার ঘর থেকে স্বপ্নার ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার করে পুলিশ। স্থানীয়দের ধারণা, মারধরের পর স্বামী ও শাশুড়ি মিলেই ‘খুন’ করে স্বপ্নাকে। তারপর ঝুলিয়ে দেয় তার মরদেহ।

পাশাপাশি মৃতার পরিবারের অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই টাকাপয়সা ও সোনাদানার জন্য স্বপ্নার উপর অত্যাচার শুরু করেছিল শ্বশুরবাড়ির লোকজন। অভিযুক্ত স্বামী ও শাশুড়িকে গ্রেফতার করেছে বাসন্তী থানার পুলিশ।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here