কালে কালে গোলাপ শুধু তার সৌন্দর্ দিয়ে মনই ভরায়নি, এর যে চমৎকার ঔষধি ও খাদ্যগুণ রয়েছে তা হয়তো অনেকেরই অজানা। তাই গোলাপ শুধু ঘরে সাজিয়ে না রেখে চাইলে এটির পাপড়ি খেয়েও দেখতে পারেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গোলাপের পাপড়ির নানাবিধ উপকারিতা রয়েছে। তারমধ্যে অন্যতম ওজন কমানো। এর মধ্যে যে যৌগগুলি রয়েছে তা ওজন কমাতে কার্যকরী ভূমিকা নেয়।
পানির সঙ্গে বা পেস্ট বানিয়ে খাওয়া যেতে পারে গোলাপের পাপড়ি। এটি মেটাবলিজ়মের হার বাড়াতেও সাহায্য করে। যাতে বেশি ক্যালরি খরচ হয়।

ত্বক ভালো রাখা
ত্বকের জন্যও যথেষ্ট উপকারী গোলাপের পাপড়ি। অনেকের মুখেই ব্রণের দাগ থাকে। সেই দাগ দূর করতে গোলাপের পাপড়ি ব্যবহার করা যেতে পারে। গোলাপ পাপড়ি জলে পানিতে ভিজিয়ে পেস্ট বানিয়ে মুলতানি মাটির সঙ্গে মিশিয়ে গালে লাগাতে পারেন। এতে ধীরে ধীরে দূর হয়ে যাবে ব্রণের দাগ।

অ্যাস্ট্রিনজেন্ট
দোকান থেকে কেনা অ্যাস্ট্রিনজেন্টের বদলে গোলাপের পাপড়ি দিয়ে তৈরি অ্যাস্ট্রিনজেন্ট বেশি ভালো। গোলাপের পাপড়ি ও পানি দিয়ে যদি মিশ্রণ তৈরি করে নিতে পারেন, সেটিই অ্যাস্ট্রিনজেন্টের কাজ করবে এবং তার মধ্যে কোনও ক্ষতিকর রাসায়নিকও থাকবে না।

গোসলের সময় ব্যবহার
গোসলের সময় যদি বাথ সল্টের সঙ্গে গোলাপের পাপড়ি ব্যবহার করেন, তাহলে খুবই ভালো। গরম পানিতে বাথ সল্ট এবং গোলাপের পাপড়ি দিয়ে গোসল করলে শরীর ও মনের ক্লান্তি দূর হয়ে যাবে। খবর ওয়ান গ্রিন প্ল্যানেটের।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here