সবার সব দিন সমান যায় না, বা কারো পৌষ মাস কারো সর্বনাশ কথাগুলো হয়তো চলচ্চিত্রের গ্ল্যামার দুনিয়ার ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি প্রযোজ্য।
যৌবনে যে প্রদীপ আলোকিত করে চারদিক, পড়ন্ত বেলায় তার নিভু নিভু আলোকে ক’জনই বা গ্রহণ করে। তেমনই একজন পূজা দাদওয়াল। ১৯৯৫ সালে বলিউডের ভাইজান খ্যাত সুপারস্টার সালমান খানের সঙ্গে জুটি বেধে সিনেমা করেছিলেন পূজা। ওই বছরই মুক্তি পায় এই জুটির অভিনীত ছবি ‘বীরগতি’। ছবিটি মোটামুটি ব্যবসাও করে। কিন্তু বাস্তবতা হলো আজ সালমান খান বলিউডের খান সাম্রাজ্যের নিয়ন্ত্রকদের একজন আর পূজা কপর্দকশূন্য অবস্থায় যক্ষা রোগ নিয়ে কাঁতরাচ্ছেন মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে। ওষুধতো দূরের কথা টাকার অভাবে খাবারটুকুও না কি কিনতে পারছেন না তিনি।

বিভিন্ন ভারতীয় গণমাধ্যম জানায়, যক্ষায় আক্রান্ত পূজা প্রায় ১৫ দিন ধরে মুম্বইয়ের ওই হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন। স্বামী, আত্মীয়, বন্ধুরা অনেকদিন আগেই তাকে ছেড়ে চলে গেছেন। ফলে যা সম্বল ছিল, ফুরিয়ে যেতে সময় লাগেনি। এর আগে ক্যারিয়ারের পড়ন্ত অবস্থায় মুম্বাই ছেড়ে গোয়ায় চলে যান পূজা। সেখানে ক্যাসিনো ম্যানেজারের কাজ করে কোনোভাবে দিন পার করছিলেন। সেখানে তিনি যক্ষায় আক্রান্ত হন। তাই একসময় চিকিৎসার জন্য ফিরে আসেন মুম্বাই।

এক সংবাদমাধ্যমের প্রশ্নের উত্তরে পূজা জানান, সালমানের সঙ্গে যোগাযোগ করার অনেক চেষ্টা করেছিলেন তিনি। কিন্তু সুপারস্টারের সঙ্গে যোগাযোগ করতে পারেননি। পরিস্থিতি এমন হয়েছে সামান্য চা খেতেও তাকে অন্যের দয়ার উপর নির্ভর করতে হচ্ছে। হাসপাতালের টাকা দিতে পারেননি। ওষুধ খাওয়ার পয়সা পর্যন্ত নেই। তাই কোনওভাবে যদি সালমানের দেখা পাওয়া যেত, হয়তো তিনি কিছু সাহায্য করতেন। এখন এই আশা মনে নিয়ে হাসপাতালের শয্যায় দিন কাটছে তার।

যদিও বলিউডের ভাইজানের কানে এখনও বোধহয় সে আওয়াজ পৌঁছায়নি। আপাতত ‘রেস থ্রি’ এর শুটিংয়ে ব্যস্ত তিনি।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here