মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন রাজনৈতিক দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসির (এনএলডি) নেতা অং সান সু চি যেকোনো মুহূর্তে অবসরে যেতে পারেন বলে গুজব উঠে। তবে রবিবার দলটির এক মুখপাত্র এ গুজবকে প্রত্যাখ্যান করেছেন। খবর ইরাবতির।

এনএলডির মুখপাত্র ইউ মিও নিউন্ত বলেছেন- খবর বেরিয়েছে যে, অং সান সু চি অবসরে যাবেন। আমি বলছি, এটা সত্য না। তবে দলের কর্মীরা যদি কঠোর পরিশ্রম করেন, তবেই তিনি অবসরে যাবেন। এটা তিনি (সু চি) সব সময়ই বলে থাকেন। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, তিনি শিগগিরই অবসরে যাবেন।

এর আগে খবর বের হয়, শনিবার এনএলডির কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির (সিইসি) সদস্যদের এক বৈঠকে সু চি বলেছেন যে, সম্ভব হলে তিনি পদত্যাগ করতে চান। নিউন্ত ওই বৈঠকের ব্যাপারে জানান, নেইপিদোতে যে বৈঠক হয়েছে সেটি ছিল শুধুমাত্র সামাজিক সমাবেশ। সিইসি সদস্যদের সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরে এ বৈঠক হয়েছে। প্রেসিডেন্ট পদত্যাগ করায় ভাইস প্রেসিডেন্ট ইউ উইন মিন্ত দেশের শীর্ষ এ পদের দায়িত্ব পালন করছেন। আমরা কার্যনির্বাহী কমিটির পুরনো এবং নতুন সদস্যদের সঙ্গে সামাজিক আড্ডা দিয়েছি। সেখানে রাজনৈতিক বিষয়ে কোনো আলোচনা হয়নি।

এ মুখপাত্র আরো বলেন, ২০০৮ সালে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী দেশটির সংবিধানে সংশোধনী আনে। এতে সরকারি কর্মকর্তারা দলীয় রাজনীতিতে অংশ নিতে পারবেন না বলে বিধান করা হয়। যে কারণে সামাজিক সমাবেশ অবৈধ নয়।

এনএলডির সংসদ সদস্য ইউ ন্যা মিও তুন বলেন, ধৈর্য এবং প্রভাব বিবেচনায় অবশ্যই তিনি (সু চি) দেশের প্রধান থাকবেন। তার (বয়স এবং কাজের চাপ বিবেচনায়) প্রতি আমাদের সহানুভূতি নেই, বিষয়টি তেমন নয়। তিনি যতদিন বেঁচে থাকবেন ততদিন দেশের জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবেন। আমি বিশ্বাস করি, তিনি এতে দ্বিমত করবেন না।

গত সপ্তাহে অস্ট্রেলিয়া সফর করেন সু চি। সেখানে একটি অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেওয়ার সময় পরিশ্রান্ত-কান্ত দেখা যায় ৭৩ বছর বয়সী এ নেত্রীকে। তার সঙ্গে ছিলেন এনএলডির কার্যনির্বাহী কমিটির সদস্য ইউ উইন হতেইন। তিনি বলেন, অস্ট্রেলিয়ায় অধিকাংশ সময়ই বিশ্রামে কাটিয়েছেন সু চি। মূলত দীর্ঘ বিমান ভ্রমণের কারণেই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। এ সময় তার সঙ্গে কথা বলা থেকেও বিরত থাকা হয়। অস্ট্রেলিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার সাাৎ ও একটি বৈঠকে বক্তৃতা দেওয়ার কথা থাকলেও শেষ পর্যন্ত তা বাতিল করা হয়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here