আজ ছাব্বিশে মার্চ, মহান স্বাধীনতা দিবস। বাঙালি জাতির ইতিহাসে সবচেয়ে গৌরবময় দিন। ২৬ মার্চ বাঙালির গৌবোজ্জ্বল মহান স্বাধীনতা দিবস। এই দিনে তাদের হাজার বছরের স্বপ্ন ও আশা-আকাক্সক্ষার বাস্তবায়ন ঘটেছে। তাই বাঙালির চিরকালের গৌরব আর অযুত অহঙ্কারের দিন ২৬ মার্চ; বাঙালির জাতীয় জীবনের ইতিহাসে উজ্জ্বল, ভাস্বর এই দিন। দীর্ঘকালের পরাধীনতার গ্লানি আর বিজাতীয় শাসন-শোষণের যাঁতাকল থেকে মুক্তি ছিনিয়ে এনে বাঙালির আত্মমর্যাদা প্রতিষ্ঠার ভিত্তি তৈরি করা হয়েছিল ১৯৭১ সালের এই দিনে।

দীর্ঘ পরাধীনতার নাগপাশ ছিন্ন করে ১৯৭১ সালের এই দিনে বাংলাদেশের স্বাধীনতা ঘোষণা করা হয়েছিল। তার আগে সাতই মার্চের বিশাল জনসভায় বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান স্পষ্টই ঘোষণা করেছিলেন‘এবারের সংগ্রাম মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম’। ২৪ মার্চ পল্টন ময়দানে স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলিত হয়েছিল। পঁচিশে মার্চ দিবাগত গভীর রাতে বঙ্গবন্ধু এক ওয়ারলেস বার্তায় জাতিকে মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ার আহ্বান জানিয়েছিলেন। এরপর দীর্ঘ নয় মাস ধরে চলে মুক্তিযুদ্ধ। এই সময়ে পাকিস্তানি বাহিনী ও তাদের এ দেশি দোসর রাজাকার-আল বদর-আল শামস বাহিনীর সদস্যদের অত্যাচার-নির্যাতন পৃথিবীর ইতিহাসখ্যাত সব বর্বরতাকে হার মানিয়েছিল। হায়েনার মতো তারা নিরীহ ও নিরস্ত্র বাঙালিদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। কিন্তু সারা দেশের মানুষের ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধের মুখে তারা টিকতে পারেনি।

শত শত বছর ধরে বাংলার এ ভূখণ্ড বহু রাজা-বাদশারা শাসন-শোষণ করেছে। নবাব আলিবর্দীর মৃত্যুর পর তার দৌহিত্র সিরাজ-উদ্-দৌলা নবাব হন। কিন্তু স্বর্ণ-প্রসবিনী সম্পদের লোভে ইংরেজরা এই ভূখণ্ড দখলে নেয়ার জন্য সর্বাÍক ষড়যন্ত্র শুরু করে। মীর জাফরের বিশ্বাসঘাতকতায় পলাশীর যুদ্ধে ইংরেজরা জয়ী হয়। ১৭৫৭ সালের ৩ জুলাই নবাব সিরাজ-উদ্-দৌলাকে হত্যা করে ২০০ বছরের জন্য বাংলার স্বাধীনতার সূর্য অস্তাচলে যায়। চলে ইংরেজদের একচেটিয়া শাসন-শোষণ। পরবর্তীকালে ইংরেজ শাসন-শোষণের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ায় ভারতবর্ষের গণমানুষ। নিরুপায় হয়ে ইংরেজরা ১৯৪৭ সালের মধ্য আগস্ট ঘোষণা দেয় পাকিস্তান ও ভারত নামের দুটি রাষ্ট্র। ইংরেজদের কাছ থেকে পাওয়া স্বাধীনতা বাঙালি জাতিকে সুখ-শান্তি তথা মুক্তি দেয়নি। নেমে আসে পাকিস্তানি দুঃশাসন, বঞ্চনা ও শোষণের খড়গ। পাকিস্তানের শতকরা ৫৫% বাঙালি দ্বিতীয় শ্রেণির নাগরিকে পরিণত হয়েছিল। রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে চরম বৈষম্য ও শোষণের শিকার হয়েছে তারা। সেনাবাহিনীতে বাঙালিদের স্থান ছিল না বললেই চলে। কেন্দ্রীয় সরকারের প্রশাসন ছাড়াও পূর্ব বাংলা সরকারের প্রশাসনেও ছিল অবাঙালি আমলাদের প্রাধান্য। প্রথমেই তারা বাংলার ভাষা ও সংস্কৃতি ধ্বংসের লক্ষ্যে পাকিস্তানের রাষ্ট্রভাষা হিসেবে একমাত্র উর্দুকে প্রতিষ্ঠিত করার ষড়যন্ত্র শুরু করে। আসলে পাকিস্তান রাষ্ট্র পূর্ব বাংলার মানুষের জন্য নতুনভাবে পরাধীনতার অভিশাপ বয়ে আনে। মূলত ১৭৫৭ সাল থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত বাঙালিরা পরাধীন ছিল।
পাকিস্তানের ঔপনিবেশিক শাসন ও শোষণের যাঁতাকল থেকে মুক্তির জন্য পাকিস্তানের সংখ্যাগরিষ্ঠ নাগরিক, বাঙালিরা ফুঁসে ওঠে। শুরু হয় আন্দোলন। ধাপে ধাপে এগিয়ে চলে সে আন্দোলন। ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলন, ১৯৬২ সালের শিক্ষা আন্দোলন, ১৯৬৬ সালের ছয় দফা, ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুত্থান, ১৯৭০ সালের ঐতিহাসিক নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নিরঙ্কুশ বিজয় (১৬৯ আসনের মধ্যে ১৬৭ আসন লাভ) বাঙালিদের পৌঁছে দেয় তাদের স্বপ্নের গন্তব্য মাহেন্দ্রক্ষণ বর্ষ ১৯৭১ সালে।

১৯৭০-এর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করা সত্ত্বেও পাকিস্তানি শাসকরা আওয়ামী লীগনেতা, বাঙালির নয়নমণি বঙ্গবন্ধুর কাছে ক্ষমতা হস্তান্তর না করে শুরু করে বহুমুখী ষড়যন্ত্র। ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের নেতৃত্বে বাঙালিরা মহাবিক্রমে জেগে ওঠে। বঙ্গবন্ধু ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানের জনসভায় তার ঐতিহাসিক ভাষণে দ্ব্যর্থহীন কণ্ঠে ঘোষণা করেন ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।’ সেদিন থেকে মুক্তিপাগল বাঙালিরা স্বাধীনতা সংগ্রামের প্রস্তুতি শুরু করে।
দীর্ঘ ২৪ বছর পাকিস্তানি শোষণ, বঞ্চনা ও দুঃশাসনের বিরুদ্ধে বাঙালির মুক্তির সংগ্রামকে স্তব্ধ করার উদ্দেশে ২৫ মার্চ ১৯৭১ রাতে ঘুমন্ত নিরস্ত্র মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ে মারণাস্ত্রে সজ্জিত জেনারেল ইয়াহিয়া খানের রক্তলোলুপ পিশাচেরা। নির্বিচারে তারা হত্যা করে অগণিত মানুষকে। ইতিহাসের এই বর্বরতম গণহত্যা বাঙালিদের স্তব্ধ করতে পারেনি। বরং অগ্নিস্ফুলিঙ্গ হয়ে জ্বলে ওঠে তারা।

২৫ মার্চ রাত সাড়ে ১২টায় ধানমন্ডির ৩২ নম্বরের বাসা থেকে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী কর্তৃক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব গ্রেপ্তার হওয়ার অল্প সময় আগেই তার স্বাধীনতার ঘোষণা প্রচার হয়ে যায় ইপিআরের ওয়্যারলেসে। বঙ্গবন্ধুর পূর্বে পাঠানো এই স্বাধীনতার ঘোষণা ইপিআরের সুবেদার মেজর শওকত আলী ও তার সাথীরা ২৫ মার্চ (১৯৭১) রাত সাড়ে ১১টায় পিলখানা থেকে ইপিআর ওয়্যারলেসে প্রচার করার পর মুহূর্তে ধরা পড়লে পাকিস্তানি সেনারা তাদের হত্যা করে। বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণাটি ২৫ মার্চ রাত ১১টায় হাজি মোর্শেদ ঢাকার বলধা গার্ডেন হতে এক গোপন রেডিও ট্রান্সমিটার থেকেও প্রচার করেন। তারপর ঢাকার মগবাজার টি এন্ড টি অফিস থেকে গোপনে বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণাটি সমগ্র দেশে পাঠানো হয়। ২৫ মার্চ রাত ১২টা ১৫ মিনিটে স্বাধীনতা ঘোষণার ওয়্যারলেস মেসেজ চট্টগ্রামে পৌঁছায়। তারপর চট্টগ্রামের কালুরঘাটে স্থাপিত স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্র থেকে ২৬ মার্চ দুপুর ২টায় বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণা প্রথম প্রচার করেন চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগনেতা তৎকালীন এমএনএ এম.এ. হান্নান। পরদিন ২৭ মার্চ, সন্ধ্যা ৭টায় ওই বেতারকেন্দ্র থেকেই বঙ্গবন্ধুর পক্ষে স্বাধীনতার ঘোষণা পাঠ করেন তৎকালীন অষ্টম বেঙ্গল রেজিমেন্টের মেজর জিয়াউর রহমান।

ঘোষণায় বঙ্গবন্ধু বলেন ‘এটা হয়তো-বা আমার শেষ বার্তা। আজ থেকে বাংলাদেশ স্বাধীন। আমি বাংলাদেশের জনগণের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি আপনারা যে যেখানে আছেন এবং আপনাদের হাতে যার যা আছে তাই নিয়ে হানাদার বাহিনীর শেষ সৈনিকটি বাংলাদেশের মাটি থেকে বিতাড়িত না হওয়া এবং চূড়ান্ত বিজয় অর্জিত না হওয়া পর্যন্ত আপনাদের যুদ্ধ চালিয়ে যেতে হবে। খোদা হাফেজ জয় বাংলা।’

বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার এই ঘোষণা বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ১৬ খণ্ডের দলিল, মেজর সিদ্দিক সালিকের (১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের ‘অপারেশন সার্চ লাইট’-এর দায়িত্বে নিয়োজিত পাক সেনাবাহিনীর গণসংযোগ কর্মকর্তা) ‘উইটনেস টু সারেন্ডার’ গ্রন্থে সংযোজিত হয়েছে। বাংলাদেশের আনুষ্ঠানিক স্বাধীনতা ঘোষণার এটাই প্রেক্ষাপট।

বঙ্গবন্ধুর স্বাধীনতার ঘোষণায় ঘুরে দাঁড়ায় বাঙালি। ২৪ বছরের একটা অহিংস, গণতান্ত্রিক আন্দোলন সশস্ত্র সংগ্রামে রূপ নেয়। তারা সারা দেশে পাকিস্তানিদের নৃশংসতার বিরুদ্ধে সশস্ত্র প্রতিরোধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। অদম্য মনোবল আর বুকভরা সাহস নিয়ে রুখে দাঁড়ায় অত্যাধুনিক মারণাস্ত্র সজ্জিত পাকিস্তানি বাহিনীকে। তারপর দীর্ঘ ৯ মাসের মরণপণ যুদ্ধের মাধ্যমে অর্জিত হয় মুক্তিযুদ্ধের চূড়ান্ত বিজয়। ঐতিহাসিক এই বিজয়ের গৌরবগাথার পাশাপাশি স্বজন হারানোর বেদনা এবং শোকের বিস্তৃতিও পাহাড়সম। ৩০ লাখ বাঙালি শহীদ হলো, ৪ লাখেরও অধিক মা-বোন সম্ভ্রম হারালো। প্রায় ১ কোটি মানুষ ভারতে আশ্রয় গ্রহণ করতে বাধ্য হলো। নৃশংস এইসব বর্বরতাও বাঙালিদের দমাতে পারেনি। ১৬ ডিসেম্বর (১৯৭১) মুক্তিবাহিনী ও ভারতীয় সেনাবাহিনীর সমন্বয়ে গঠিত মিত্রবাহিনীর কাছে ১ লাখ সৈন্য নিয়ে আত্মসমর্পণ দলিলে স্বাক্ষর করলো পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর কমান্ডার জেনারেল একে নিয়াজী।

এমনি করেই শেষ পর্যন্ত অভ্যুদয় ঘটলো স্বাধীন সার্বভৌম বাংলাদেশের। হঠাৎ করে মেজর জিয়া নামের ব্যক্তিটির ঘোষণায় স্বাধীনতা আসেনি। যিনি ২৫ মার্চ (১৯৭১) পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর পক্ষে সোয়াত জাহাজ হতে অস্ত্র খালাস করতে উদ্যত হয়েছিলেন, তার হঠাৎ করে কয়েক ঘণ্টায় দীর্ঘ ২৪ বছরের একটা সংগ্রামের নেতৃত্বে প্রতিষ্ঠিত হয়ে স্বাধীনতার ঘোষণা দেওয়ার কোনও অধিকার ছিল কি? ‘সোয়াত’ জাহাজ হতে অস্ত্র নামাতে বিরত করা হয়েছিল বলেই জিয়া মুক্তিযোদ্ধা হয়েছেন। মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ ছিল তার জন্য বাধ্যবাধকতা। কারণ জিয়ার পক্ষে তখন হানাদার-বাহিনীর পক্ষাবলম্বন করা সম্ভব ছিল না।

জীবন বাঁচাতে পারবেন না বলেই তাকে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করতে হয়। জিয়া তার অবস্থান সম্পর্কে ভালো করেই জানতেন। তার জীবদ্দশায় তিনি নিজে স্বাধীনতার ঘোষক বলে দাবি করেননি বরং সাপ্তাহিক ‘বিচিত্রা’য় প্রকাশিত এক প্রবন্ধে জিয়া বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবকে স্বাধীনতার ঘোষক, মুক্তিযুদ্ধের মহানায়ক ও জাতির জনক হিসেবে উল্লেখ করেছেন। জে. জিয়ার মৃত্যুর পর তার অনুসারীরা ওই ঘোষণার ব্যাপারটা নিয়ে ইতিহাস বিকৃত করে রাজনৈতিক সুবিধা আদায়ের চেষ্টা করেছে। সেই সাথে বাংলাদেশের স্বাধীনতাবিরোধী, সাম্প্রদায়িক মৌলবাদী, সন্ত্রাসবাদী, প্রতিক্রিয়াশীল, ভণ্ড, স্বার্থপর ও অনুগ্রহ-প্রত্যাশী বুদ্ধিজীবী এবং ক্ষমতালিপ্সু আমলা, রাজনৈতিক চক্র বাংলাদেশের স্বাধীনতার এই স্বকপোলকল্পিত ইতিহাস তৈরির সিঁদেল চোরের ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছে।

তিরিশ লাখ শহীদের রক্ত এবং বহু ত্যাগের বিনিময়ে ১৬ ডিসেম্বর আমরা চূড়ান্ত বিজয় অর্জন করেছিলাম। আজকের এই দিনে স্বাধীনতাযুদ্ধের সব শহীদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও যারা নির্যাতন-নিপীড়নের শিকার হয়েছিলেন, তাদের সবাইকে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি। আমরা শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করছি, মুক্তিযুদ্ধে সহায়তা প্রদানকারী সব ব্যক্তিকে। অন্যদিকে, আমরা ঘৃণা জানাচ্ছি পাকিস্তান বাহিনীকে সহযোগিতাকারী এই দেশেরই কিছু কুসন্তানকে।

ম. নজরুল ইসলাম, অস্ট্রিয়া থেকে

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here