বিনয় কুমার ভারতের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সোসাইটির একজন বিজ্ঞানী। কর্নাটক রাজ্যের নগরহোল জঙ্গলে কাজে গিয়ে অনেকটা হঠাৎ করেই একটি হাতির কাণ্ড কারখানা ভিডিও করেন তিনি।

জঙ্গলে ক্যামেরা বসানো ছিল বাঘের গতিবিধি আর আচরণের ফুটেজ তোলার জন্য। সকাল বেলা কাছেই হাতিটিকে দেখে তার ভিডিও শুরু করলেন বিনয় কুমার। যাতে দেখা যাচ্ছে জঙ্গলে কেউ আগুন ধরিয়েছিল। সেটি নিভে যাওয়ার পর সেখানে তখনো কয়লাগুলো জ্বলছিল।

হাতিটি সেই গরম কয়লা তুলে গিলে ফেলছিল বলে মনে হয়। আর সুর দিয়ে প্রচুর ছাই ও ধোঁয়া ছাড়ছিল। দেখে মনে হয় যেন সে ধূমপান করছে!

সেই ঘটনার একটি ৪৮ সেকেন্ডের ভিডিও প্রকাশ করেছে ভারতের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সোসাইটি। সংস্থাটি বলছে, ওই ভিডিওতে একটি বন্য হাতিকে এমন কাজ করতে দেখা গেছে যা, কোনো হাতিকে কখনোই করতে দেখা যায়নি। আর হাতিটির এই আচরণ বিস্মিত করেছে বন্যপ্রাণী গবেষকদেরও।

২০১৬ সালের এপ্রিলে তোলা ওই ভিডিওটি সম্প্রতি প্রকাশ করা হয়েছে। বিনয় কুমার বলছেন, এ ঘটনার যে কতটুকু গুরুত্ব রয়েছে সেটি বুঝতে পারছি না।

গবেষকরা অনেক কিছুই আবিষ্কার করেন। কিন্তু হাতির এমন আচরণ মানুষের চোখে এর আগে কখনো ধরা পরেনি বলে জানিয়েছে ভারতের বন্যপ্রাণী সংরক্ষণ সোসাইটি। বিজ্ঞানীরা বলছেন, হাতিটি কেন এমন করছিল সে বিষয়ে তারা এখনো নিশ্চিত নন।

জীববিজ্ঞানী বরুণ গোস্বামী হাতি নিয়ে গবেষণা করেন। তিনি বলেছেন, শরীরে উৎপন্ন টক্সিন নিয়ন্ত্রণে কয়লার উপকারিতা রয়েছে। হতে পারে হাতিটি সেই কারণে তাতে আকৃষ্ট হয়েছে। তাছাড়া কয়লা মল নরম করতেও সহায়তা করে।

তবুও মেয়ে হাতিটির এ আচরণের ব্যাখ্যা খুঁজে চলেছেন বিজ্ঞানীরা।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here