হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে কিশোরী বিউটি আক্তার ধর্ষণ ও হত্যা মামলার আসামি বাবুল মিয়াকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব ও পুলিশের একটি যৌথ দল। শুক্রবার গভীর রাতে সিলেটের বিয়ানিবাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয় বলে নিশ্চিত করেছেন হবিগঞ্জের পুলিশ সুপার বিধান ত্রিপুরা।
আজ শনিবার দুপুরে সিলেটে র‌্যাবের সদর দফতরে এক প্রেস কনফারেন্সে এ ব্যাপারে বিস্তারিত জানানো হবে।

গত ২১ জানুয়ারি শায়েস্তাগঞ্জের ব্রাহ্মণডোরা গ্রামের দিনমজুর সায়েদ আলীর মেয়ে বিউটিকে (১৪) বাড়ি থেকে অপহরণ করে বাবুল ও তার সহযোগীরা। এরপর তাকে এক মাস তাকে আটকে রেখে ধর্ষণ করে। এক মাস নির্যাতনের পর বিউটিকে কৌশলে তার বাড়িতে রেখে পালিয়ে যায় বাবুল। এ ঘটনায় গত ১ মার্চ বিউটির বাবা বাবুল ও তার মা স্থানীয় ইউপি মেম্বার কলমচানের বিরুদ্ধে হবিগঞ্জ নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে মামলা করেন। এছাড়া মেয়েকে সায়েদ আলী তার নানার বাড়িতে লুকিয়ে রাখেন।

কিন্তু মামলার পর বাবুল ক্ষিপ্ত হয়ে ১৬ মার্চ বিউটিকে উপজেলার গুনিপুর গ্রামের তার নানার বাড়ি থেকে আবার জোর করে তুলে নিয়ে ধর্ষণের পর খুন করে লাশ হাওরে ফেলে দেয়। হাওরের সবুজ ঘাসের মধ্যে পড়ে থাকা বিউটির লাশের ছবি বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে প্রতিবাদের ঝড় ওঠে।

বিউটিকে ধর্ষণ ও হত্যার অভিযোগে সায়েদ আলী ১৭ মার্চ আবারও বাবুল মিয়াসহ দুজনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত কয়েকজনকে আসামি করে শায়েস্তাগঞ্জ থানায় হত্যা মামলা করেন। এরপর ২১ মার্চ পুলিশ বাবুলের মা কলমচান ও সন্দেহভাজন হিসেবে একই গ্রামের ঈসমাইলকে আটক করে।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here