দিল্লির উপকন্ঠে গুরগাঁওতে মুসলিমরা যাতে উন্মুক্ত সরকারি জমিতে নামাজ পড়তে না-পারে, সে জন্য আন্দোলনে নেমেছে বেশ কয়েকটি হিন্দুত্ববাদী সংগঠন। একে ঘিরে এলাকায় তীব্র সাম্প্রদায়িক উত্তেজনাও ছড়াচ্ছে।

শুক্রবার (২০ এপ্রিল) এই ঘটনার সূত্রপাত। গুরগাঁওয়ের অভিজাত এলাকা সেক্টর ৫৩-তে বিস্তীর্ণ এলাকা জুড়ে সরকারি একটি মাঠ রয়েছে, সেখানেই জুম্মার দিনে নামাজ পড়ার জন্য জড়ো হয়েছিলেন স্থানীয় ৫শ মুসলিম।

গুরগাঁওয়ের ওই মাঠে বহুদিন ধরেই নামাজ পড়া হচ্ছে, কিন্তু সেদিন সেখানে নামাজে বাধা দেয়ার জন্য হঠাৎ করে জড়ো হয় বেশ কিছু যুবক। আশেপাশের ওয়াজিরাবাদ ও কানহাই গ্রামের ওই হিন্দু যুবকরা ‘জয় শ্রীরাম’ ধ্বনি দিতে দিতে নামাজের জন্য আসা ব্যক্তিদের ব্যঙ্গ করতে থাকে, তাদের প্রার্থনা পণ্ড করারও চেষ্টা করে।

পরে ওই ঘটনার একটি ভিডিও ফেসবুক ও হোয়াটসঅ্যাপের মতো সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে পড়লে হরিয়ানা পুলিশ নড়েচড়ে বসতে বাধ্য হয়।

এদিকে ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করার অভিযোগে ভিডিও থেকে চিহ্নিত করে হামলাকারী ছজন যুবককে গ্রেফতারও করা হয়। পরে তারা সবাই জামিনে ছাড়া পেয়ে যান। এরপরই সোমবার গুরগাঁওতে ‘সংযুক্ত হিন্দু সংঘর্ষ সমিতি’ নামে একটি সংগঠন জেলা প্রশাসকের দপ্তরের সামনে তুমুল বিক্ষোভ দেখায়।

তাদের দাবি ছিল, গুরগাঁওতে হিন্দু-অধ্যুষিত এলাকার আশেপাশে যে সব খোলা জমি আছে সেখানে মুসলিমদের নামাজ পড়া নিষিদ্ধ করতে হবে। বজরং দল, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ, শিবসেনা, হিন্দু জাগরণ মঞ্চ, ভারত বাঁচাও অভিযান, অখিল ভারতীয় হিন্দু ক্রান্তি দল ইত্যাদি মোট বারোটি কট্টরপন্থী হিন্দু সংগঠন একজোট হয়ে এই সমিতিটি গঠন করেছে।

গত শুক্রবার (২৭ এপ্রিল) মুসলিমরা এই মাঠে নামাজ পড়েছেন পুলিশি পাহারায়। তবে আগামিকাল (৪ মে) আবার জুম্মার নামাজের সময় কোনও গণ্ডগোল বাঁধে কি না, এই ভয়ে তটস্থ হয়ে রয়েছেন তারা অনেকেই।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here