সোহাগ হাওলাদারের দেড় বছরের এক শিশু সোহান। গত ২৫ এপ্রিল রাজধানীর ভাটারা থানার নর্দায় অসাবধানতাবশত সোহানের গায়ে গরম ডাল পড়ে। এতে শরীরের ১৬ ভাগ পুড়ে যায়।

বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৭টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে (ঢামেক) চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। লাশ জরুরি বিভাগের হিমাগারে রাখা হয়।

এদিকে হাসপাতাল মর্গে সোহানের গালে একটি গর্ত সৃষ্টি হয়েছে। স্বজনরা বলছেন, তার গালে অনেক বড় ক্ষত কেন? ওর গালে তো কোনো ক্ষত ছিল না।

গুলশান থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) ফারুখ আলম জানান, ‘সোহানের স্বজনদের তথ্যে ঢামেকে আসি। পরে তার বাম পাশের গালে ক্ষত দেখা যায়। ধারণা করা হচ্ছে ফ্রিজের দরজা খোলা ছিল। ইঁদুরে খেয়েছে। ময়নাতদন্ত শেষে লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।’

হাসপাতাল সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ফ্রিজের পেছনের দিকে বড় গর্ত রয়েছে। গর্ত দিয়ে বেজি বা ইঁদুর ঢুকে থাকতে পারে। গর্তটি অনেকদিন ধরে থাকলেও মেরামত করা হয় না।

এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ঢামেক হাসপাতালের পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল একে এম নাসির উদ্দিন বলেন, ‘বিষয়টি খুব বেদনাদায়ক। কেন গালে ক্ষত হলো। তদন্তপূর্বক ঘটনা বেরিয়ে আসবে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here