ভারতের উত্তর প্রদেশে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা দূর করতে ছোট কাজে বিশাল উদ্যোগ নেন এক মুসলিম। যা ধর্মীয় সীমানা অতিক্রম করে হিন্দুদের সঙ্গে তার বন্ধুত্বের সম্পর্ক তৈরি করেছে। রাজ্যের সুলতানপুর জেলার বাসিন্দা মোহাম্মদ সেলিম তার মেয়ের বিয়েতে হিন্দু-মুসলিমদের জন্য দুই ধরনের বিয়ের আমন্ত্রণ কার্ড করেন। মুসলমানদের জন্য কার্ডটি ছিল যথাযথ ইসলামিক নিয়মেই। আর হিন্দুদের কার্ডে ছিল রাম ও সীতার বিয়ের শপথের মূর্তি।

এ বিষয়ে সেলিম বলেন, ‘আমার হিন্দু ভাইদের এবং তাদের ধর্মীয় অনুভূতির প্রতি আমার শ্রদ্ধা প্রকাশের জন্য এটি একটি ছোট্ট উদ্যোগ।’ তার মেয়ে জাহান বানোকে বিয়ে করেন পাশের বাঘসরা গ্রামের বাসিন্দা ইউসুফ মোহাম্মদ। তাদের কাছেও জিজ্ঞেস করা হয়েছিল, এ কার্ডে তাদের আপত্তি আছে কি না। তারা উল্টো এ উদ্যোগের প্রশংসা করেছেন।

ধর্মীয় ও বর্ণের বিভাজনের দিকে মনোযোগ আকর্ষণ করে সেলিম বলেন, ‘বর্তমান পরিস্থিতিতে, যদি এ উদ্যোগ দুই সম্প্রদায়ের মধ্যে পার্থক্য টিকিয়ে রাখতে পারে তবে ভবিষ্যতে আমি এটি পুনরাবৃত্তি করব।’

তিনি আরও বলেন, ‘এটি ছিল একটি ছোট পদক্ষেপ। হিন্দু ও মুসলমান উভয়ই যুগ যুগ ধরে এ গ্রামে বসবাস করে আসছে। আমাদের গ্রামে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি ছিল। কিন্তু বর্তমানে সেটা কিছু কমেছে।’

সেলিমের উদ্যোগের প্রশংসা করে একই গ্রামের শ্যামচরণ তিওয়ারি বলেন, ‘এ বিয়ের অনুষ্ঠানে আমি যোগ দিয়েছি। সেলিমের এ উদ্যোগ দুই ধর্মের মানুষের মধ্যে বিভেদের দেয়াল ভেঙে দিয়েছে।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here