গর্ভধারণ প্রতিরোধে সাধারণত নারীরাই জন্মনিয়ন্ত্রণ বড়ি, গর্ভনিরোধক ওষুধ অথবা অন্যান্য বিকল্প ব্যবস্থা নিয়ে থাকেন। কিন্তু বিশেষজ্ঞরা বলছেন, পুরুষদের পক্ষে এটা অনেক সহজ এবং নিরাপদও।

যে সকল পুরুষ এই মুহূর্তে বাচ্চা নিতে প্রস্তুত নন কিংবা জন্মনিয়ন্ত্রণ বা এই সম্পর্কিত অন্যান্য ওষুধের উপর নির্ভর করতে পারছেন না তাদের জন্য গর্ভনিরোধের ৫টি উপায় নিচে দেয়া হলো-

সংযম
যখন কোন ব্যক্তি সংযমি হন তখন স্ত্রীয়ের গর্ভবতী হওয়ার কোনও সম্ভাবনাই থাকে না। তবে ভালোবাসতে বিরত থাকাটা বৈবাহিক জীবনের জন্য় একেবারেই স্বাস্থ্য়কর নয়।

কনডম
গর্ভাবস্থা প্রতিরোধ করতে পুরুষদের কনডম ব্যবহার করা উচিত। কনডম পুরুষাঙ্গে ধারণ করতে হয়। এটা শুধু যে শুধু গর্ভধারণ রোধ করে তা নয়; এটি যৌন রোগ প্রতিরোধ করতেও সাহায্য করে।

আউটারকোর্স
আউটারকোর্স এমন একটি উপায় যার দ্বারা স্বামীরা গর্ভধারণ রোধ করতে পারেন। সহজ কথায়, আউটারকোর্স যোনির বাইরে শুক্রাণু রাখে এবং তাই গর্ভধারণ রোধ করে। মহিলাদের জন্যও এটি একটি কার্যকর পদ্ধতি।

ভ্যাসেকটমি
এটি অবশ্য পুরুষদের গর্ভধারণ রোধ করার সবচেয়ে ব্যয়বহুল উপায়। ভ্যাসেকটমির দ্বারা পুরুষদের নির্বীজকরণ করা হয়, যা গর্ভাবস্থা রোধ করে। যদিও অনেক পুরুষ এই পদ্ধতি অনুসরণ করতে একেবারেই পছন্দ করেন না। যদিও এটা বেশ কার্যকর এবং উত্তম যদি আপনি কখনও পিতা হতে না চান।

প্রত্যাহার
স্বামীরা প্রত্যাহারের পদ্ধতি অনুশীলনের দ্বারা গর্ভধারণ রোধ করতে পারেন। প্রত্যাহারকে “পুল আউট মেথড” বলা হয়ে থাকে। এটা এমন একটি পদ্ধতি যা অধিকাংশ লোক যোনি মিলনের সময় অনুসরণ করে থাকেন, গর্ভধারণ রোধ করার চেষ্টায়। এটা একশো ভাগ নিরাপদ নয় যদিও। তবে এটি সহজ এবং সুবিধাজনক।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here