২০১৩ সালের ১৬ আগস্ট রাজধানীর চামেলীবাগে নিজ বাসা থেকে পুলিশের স্পেশাল ব্রাঞ্চের (রাজনৈতিক শাখা) পরিদর্শক মাহফুজুর রহমান ও তার স্ত্রী স্বপ্না রহমানের ক্ষতবিক্ষত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। মা-বাবা খুন হওয়ার পর ভাই ও গৃহকর্মী খাদিজা আক্তার সুমিকে নিয়ে পালিয়ে যায় ঐশী।

ওই ঘটনায় ২০১৩ সালের ১৭ আগস্ট নিহত মাহফুজুর রহমানের ছোট ভাই মো. মশিউর রহমান রুবেল পল্টন থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। একই বছরের ১৭ আগস্ট ঐশী রমনা থানায় আত্মসমর্পণ করে। এর পর ২৪ আগস্ট আদালতে খুনের দায় স্বীকার করে জবানবন্দি দেয় সে।

২০১৪ সালের ৯ মার্চ গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মো. আবুল খায়ের মাতুব্বর আসামিদের বিরুদ্ধে দুটি পৃথক চার্জশিট দাখিল করেন। সুমি অপ্রাপ্ত বয়স্ক হওয়ায় কিশোর আইনে এবং ঐশীসহ তিনজনের বিরুদ্ধে আরেকটি চার্জশিট দাখিল করেন। ঘটনার সময় তার বয়স ছিল মাত্র ১১ বছর। তাই সুমির মামলার বিচার কার্যক্রম কিশোর আদালতে পরিচালনা হয়। ঐশীকে সহযোগিতার অপরাধে ২০১৪ সালের ২০ মে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন আদালত।

অভিযোগ গঠনের চার বছর পর সুমিকে খালাস দিয়েছেন আদালত। রাষ্ট্রপক্ষ অভিযোগ প্রমাণ করতে ব্যর্থ হওয়ায় রোববার ঢাকার প্রথম অতিরিক্ত মহানগর দায়রা জজ আল মামুন এ আদেশ দেন। মুক্ত হয়ে কিশোরীর সুমি বলে, ‘ঐশী রহমান আমার জীবনের সবকিছু এলোমেলো করে দিয়েছে। ছুরি দেখিয়ে সে তার বাবা মায়ের রক্ত ও লাশ সরাতে বাধ্য করেছে। আমার কোনো দোষ ছিল না। আল্লাহ তার পাপের সাজা দিয়েছে। আমরা গরিব মানুষ। কাজ করে খাই। কিন্তু ঐশীর কারণে আমাকে জেলে থাকতে হয়েছে। তার কথা যখন মনে পড়ে তখন ঘৃণা হয়।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here