মেয়ে শিরিন সুলতানা ওরফে রত্না এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ ৪ পেয়েছে। এ খবরটি বাসায় পৌঁছার পরপরই ফেনীর মিজান রোডের আনোয়ার উদ্দিন বাইলেনের একটি বাসায় হাসির পরিবর্তে শুরু হয় কান্না। বাড়িয়ে দেয় মেয়ে হারানোর শোক। বাবা ও মায়ের আর্তি এ ফলাফল যে মেয়ের জন্য সে তো বেঁচে নেই। গত ১ মার্চ এক দুর্বৃত্ত বাসায় ঢুকে তাকে গলা কেটে হত্যা করেছে।

ওই বাসার সৌদি প্রবাসী আনিছুল হক ও গৃহবধু সালমা আক্তারের মেয়ে রত্না ফেনী পৌর বালিকা বিদ্যালয় থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছিল। পরীক্ষা শেষ হয় গত ১ মার্চ। ওই দিন বিকেলে মেয়েকে বাসায় রেখে তার মা পাশের একটি বাসায় গিয়েছিলেন। বাসায় ফিরে দেখতে পান মেয়ের রক্তাক্ত দেহ পড়ে রয়েছে। লক্ষীপুরের রামগতি উপজেলার আবদুল্লাহ আল-মামুন নামে এক দুর্বৃত্ত ওই পরীক্ষার্থীকে গলাকেটে হত্যা করে। পালানোর সময় স্থানীয়রা তাকে ধরে পুলিশে সোপর্দ করে।

বাবা আনিছুল হক কান্নাজড়িত কণ্ঠে জানান, যাদের সুখের জন্য দীর্ঘ সময় প্রবাসে শ্রমিকের কাজ করেছেন। এখন তাদের সব স্বপ্ন শেষ। মেয়ের মৃত্যুর খবর শুনে দেশে ফিরেছেন। আর যাবেন না বলেই সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here