ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কবি সুফিয়া কামাল হল ছাত্রলীগের সভাপতি সেই ইশরাত জাহান এশা এবার কেন্দ্রীয় পদ পাচ্ছেন। সংগঠনটির একাধিক নেতা এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। সরকারি চাকরিতে প্রবেশে কোটাবিরোধী আন্দোলন নিয়ে নানা নাটকীয়তাই তাকে এ সুযোগ করে দিচ্ছে। হলের এক ছাত্রীর ‘রগ’ কাটাকে কেন্দ্র করে তখন জুতার মালা পড়ানো হয়েছিলে আলোচিত এই নেত্রীকে। বহিষ্কৃত হতে হয়েছিল বিশ্ববিদ্যালয় ও ছাত্রলীগ থেকে।

অবশ্য পরে জানা যায়, রগ কাটার যে ঘটনা ছড়ানো হয়েছে সেটা নিতান্তই গুজব। মোর্শেদা খানম নামে এক ছাত্রীর পা কেটে যাওয়াতেই মূলত এ গুজব ছড়ানো হয়। মূলত মোর্শেদা কাঁচের জানালায় লাথি মারার পর তার পা কেটে যায়। মোর্শেদা নিজেও ছিলেন ছাত্রলীগের নেত্রী।

এরপরই শুরু হয় বিতর্কের ঝড়। সংগঠনের সাবেক নেতা থেকে শুরু করে বর্তমানরাও তার বাসায় গিয়ে সান্ত্বনা দেন। এমনকি প্রধানমন্ত্রী নিজেও এশার বিষয়টি দেখার জন্য আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে নির্দেশ দেন। এ ঘটনায় দ্রুত তদন্ত শেষে এশাকে তার পদ ফিরিয়ে দেওয়া হয়। সেই সঙ্গে মোর্শেদাসহ ছাত্রলীগের ২৬ নেত্রীকে বহিষ্কার করা হয়।

ওই সময় এশাকে নিয়ে কলাম লেখেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসাইন। তিনি বলেন- আমরা যত কিছুই করি না কেন, এশার প্রতি যে অবিচার করা হয়েছে তা কোনোভাবেই পূরণ হবে না। এশার যে পরিচয় সেটা তার নিজের যোগ্যতায় অর্জন করেছে। রাজপথের প্রচণ্ড রোদে যখন সবার মাথা ধরে আসে তখন আমাদের মিছিলে এশাও থাকে। যে মিছিল হতে পারে আমা‌দের জীবনের শেষ মিছিল, সেই মিছিলের অগ্রভাগে থাকে সে। সেও গাঢ় কণ্ঠে স্লোগান ধরে ‘জয় বাংলা, জয় বঙ্গবন্ধু’।

সমাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকেও এশার পক্ষে প্রথমে গুটিকয়েক মানুষ থাকলেও পরবর্তীতে লাখো ফলোয়ার তার প্রতি সহমর্মিতা দেখান। এরই মাঝে গুঞ্জন ওঠে, সংগঠনের বড় পদ পাচ্ছেন তিনি। এবার সেই গুঞ্জনই সত্যি হচ্ছে, সাবেক নেতারাও তার জন্য শীর্ষপর্যায়ে সুপারিশ করছেন বলে জানা গেছে। তবে এটা নিশ্চিত যে, সভাপতি কিংবা সাধারণ সম্পাদকের পদ না দিলেও কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি করা হচ্ছে তাকে।

এরই মধ্যে শেষ হয়েছে ঐতিহ্যবাহী এ সংগঠনের ২৯তম কেন্দ্রীয় সম্মেলন। দুয়েক দিনের মধ্যেই নতুন নেতা নির্বাচিত করবেন ছাত্রলীগের সাংগঠনিক নেত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। সদ্য বিদায়ী কমিটির শীর্ষ নেতাদের অনুরোধেই তিনি এবার সিলেকশন পদ্ধতিতে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদ ঠিক করে দেবেন। আর এর মাধ্যমে প্রায় দেড়যুগের বেশি সময় ধরে চলে আসা ছাত্রলীগ সিন্ডিকেটের অবসান হতে যাচ্ছে।

সাধারণ সম্পাদক জাকির হোসাইন বলেন, দুয়েক দিনের মধ্যে ছাত্রলীগকে নতুন কমিটি উপহার দেবেন প্রধানমন্ত্রী। সে সিদ্ধান্ত আমরা শিগগিরই জানিয়ে দেব।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here