ওয়ানডে হলে হয়তো এত কথা উঠত না। তবে ফরম্যাটটি টি-টোয়েন্টি বলেই রাজ্যের উত্তেজনা। উঠে আসছে কঠিন প্রতিযোগিতার আবহ। কেমন হবে বাংলাদেশ আফগানিস্তান টি-টোয়েন্টি সিরিজ, মিরপুরে এমন প্রশ্ন প্রায় প্রতিদিনই শুনতে হচ্ছে ক্রিকেটারদের।

ওয়ানডে র‌্যাংকিংয়ে আফগানিস্তানের চেয়ে অনেক এগিয়ে বাংলাদেশ। তবে টি-টোয়েন্টিতে তার বিপরীত। বাংলাদেশ যেখানে ১০, আফগানদের অবস্থান ৮-এ। দেরাদুনে জুনের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠেয় টি-টোয়েন্টি সিরিজকে তাই খুব চ্যালেঞ্জিং হিসাবেই মানছেন বাংলাদেশের তারকা অলরাউন্ডার মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ।

বৃহস্পতিবার মিরপুরে তিনি বলেন, ‘ব্যাটসম্যানদের দায়িত্ব থাকবে ভাল পারফর্ম করা। এবং বোলারদের ভাল ফিডব্যাক দেয়া। কারণ আমরা জানি ওদের বোলিংয়ে ভাল ভ্যারাইটি আছে। আমার মনে হয় খুব চ্যালেঞ্জিং সিরিজ হবে আমাদের জন্য।’

আফগান প্রসঙ্গে ‍উঠতেই চলে আসছে দুই স্পিনার রশিদ খান ও মুজিবের কথা। রশিদ গত বিপিএলে খেলেছে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের হয়ে। তবে মুজিব সম্পর্কে ধারণা নেই সাকিবদের। এ প্রসঙ্গে মাহমুদউল্লাহ জানান, ‘আমরা অলরেডি ভিডিও ফুটেজ দেখেছি। যদিও আমি মুজিবকে এখনও ফেস করিনি। রশিদ খানকে খেলা হয়েছে। এরআগে যখন হোম কন্ডিশনে আফগানিস্তানের সাথে খেলেছি তখন দেখেছি। আগেও বলেছি ওদের বোলিং অ্যাটাকের যে ভ্যারাইটি আছে আমাদের ব্যাটিং ডেপথের ওই ক্যাপাবিলিটি আছে যে ওদের বোলারদের ফেস করা। এবং রাইট ওয়েতে নিজেরদের অ্যাপ্লাই করা।’

টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে র‌্যাংকিং খুব একটা আমলে আনছেন না রিয়াদ। তার মতে, এই ফরম্যাটে ছোট-বড় দল হিসাবে বিবেচনার সুযোগ নেই। নির্দিষ্ট একটা দিনে যেকোন দলই জিততে পারে। রিয়াদ বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভবে মনে করি টি-টোয়েন্টি ফরম্যাটে বড় টিম ছোট টিম বলতে কিছু নেই । পার্টিকুল্যার ডে তে যে কোন টিম যে কোন দলকে হারাতে পারে। বলার অপেক্ষা রাখে না আমাদের ভাল ক্রিকেট খেলতে হবে। সে সেক্ষেত্রে প্রতিপক্ষ আফগানিস্তান হোক কিংবা ভারত-অস্ট্রেলিয়া যেই হোক। এই ছোট ফরম্যাটে যেহেতু কামব্যাক করার সুযোগ খুবই কম, ফলে শুরুটা আমাদের ভাল করতে হবে। প্রতিটি সেক্টরে আমাদের ভাল করার বিকল্প নাই।’

সবচে বড় চ্যালেঞ্জ কী? এমন প্রশ্নের জবাবে মাহমুদউল্লাহ বলেন, ‘আমি যেটা আগে বললাম আমাদের ব্যাটিং গভীরতা যেহেতু আছে ওইটার উপরে জোর দিতে হবে। আর আমাদের বোলিং বিভাগও ভাল করছে। সাকিব আছে, অপু আছে, মিরাজ আছে; আমাদের বোলিংয়েও ভ্যারাইটি আছে। যদি বোলিং স্ট্রেংথের কথা বলেন, ওদের স্ট্রেংথ আমাদের স্ট্রেংথ ভিন্ন। ওইটা নিয়ে মাথা না ঘামিয়ে আমরা আমাদের স্ট্রেংথগুলোর দিকে ফোকাস করে আগাতে চাই। যেভাবে নিদাহাস ট্রফিতে ক্যালকুলেটিভ রিস্ক নিয়ে খেলেছি সেই জিনিসগুলো যদি অ্যাপ্লাই করতে পারি তাহলে ইতিবাচক ফলাফল আশা করতে পারি।’

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here