দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার মুসলিমদের কাছে ৭৮৬ সংখ্যাটি খুবই জনপ্রিয় এবং পবিত্র। বাংলাদেশ, পাকিস্তান, ভারত ও মিয়ানমারের মুসলিমদের মধ্যে ৭৮৬ ব্যবহার বেশি। ‌‘বিসমিল্লাহির রহমানির রহিম’ বুঝাতেই এটির ব্যবহার করা হয়, যার অর্থ- ‘পরম করুণাময় অসীম দয়ালু আল্লাহর নামে শুরু করছি’।

কোনো কিছু লেখা বা শুরু করার আগে ধর্মপ্রাণ মুসলিমরা আল্লাহর নাম নেন। কিন্তু যে কোনো কাগজে আল্লাহর নাম লেখা তারা সব সময় পছন্দ করেন না। কারণ কাজ ফুরিয়ে গেলে বেশিরভাগ সময়ই ওই কাগজ ফেলে দেওয়া হয়, তখন আল্লাহর নাম যেখানে সেখানে পড়ে থাকতে পারে। তাই বিসমিল্লাহর বদলে ৭৮৬ লিখতেই বেশি পছন্দ করেন মুসলিমরা।

তবে এর একটি ব্যাখ্যাও রয়েছে। ভাষাবিদরা জানান, আরবি বর্ণমালা দুভাবে সাজানো যেতে পারে। প্রথমটি চিরাচরিত বর্ণানুক্রমিক ধারা, অন্যটি আবজাদ পদ্ধতি। এতে প্রতিটি অক্ষরের গাণিতিক মানানুসারে তাদের ক্রমবিন্যাস করা হয়। এ পদ্ধতি অনুসারে প্রতিটি অক্ষরের নিজস্ব গাণিতিক মান রয়েছে এবং তা ১ থেকে ১০০০ পর্যন্ত। আবজিদ পদ্ধতি অনুসৃত হয় ফিনিশীয়, আরামাইক, হিব্রু ইত্যাদি সেমিটিক ভাষাতেও।

ভারতীয় উপমহাদেশের মুসলমানদের কাছে আবজিদ পদ্ধতি বিশেষ জনপ্রিয় হয়ে উঠে। আর এ পদ্ধতিতে ‘বিসমিল্লাহ্’ শব্দটির গাণিতিক মান হয় ৭৮৬। ইতিহাস থেকে জানা যায়, আব্বাসিয় খেলাফতকালেই মুসলমানরা ‘বিসমিল্লাহ’ এর পরিবর্তে ৭৮৬ সংখ্যাটিকে লিখতে শুরু করেন।

তবে অনেক ধর্মপ্রাণ মুসলিমই আল্লাহর নামের পরিবর্তে ৭৮৬-এর ব্যবহার পছন্দ করেন না। বিশেষ করে মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে আল্লাহর পবিত্র নামের স্থলে কোনো সংখ্যার ব্যবহার অপছন্দের। কোরআনও ৭৮৬-র ব্যবহার অনুমোদন করে না।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here