বাগেরহাট সদর উপজেলায় একটি পাগলা কুকুরকে নিয়ে তুলকালাম কাণ্ড ঘটে গেছে। এটির কামড়ে সেখানে আহত হয়েছেন নারী ও শিশুসহ অন্তত ৩০ জন। তবে আসল কাণ্ডটি ঘটে যখন কুকুরটি ফকিরহাট উপজেলার বেতাগা ইউনিয়নের চাকুলি গ্রামের একটি গাভীকে কামড় দেয়। সেই গাভীর দুধ পান করে জলাতঙ্ক আতঙ্কে অসুস্থ হয়ে পড়েন আরো ৯০ জন। এর মধ্যে ১২ জনকে বাগেরহাট সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

বুধবার সকাল থেকে বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত সদর উপজেলার কাড়াপাড়া ও মির্জাপুর গ্রামে এই ঘটনা ঘটে। ইতিমধ্যে এলাকাবাসী কুকুরটিকে পিটিয়ে মেরেছে। বাগেরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, যাদের কুকুর কামড়েছে তাদের প্রতিষেধক টিকা দেওয়া হয়েছে। ফলে আতঙ্কের কিছু নেই।

ফকিরহাট উপজেলার বেতাগা ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য ফোরকান শিকারি বলেন, ‘চাকুলি গ্রামের বেল্লাল শেখের পোষা গরুর দুধ ওই গ্রামের প্রায় দশটি পরিবার নিয়মিত পান। ওই দশটি পরিবারে সদস্যসংখ্যা ১০০ জনের বেশি। কয়েক দিন আগে কুকুরে কামড়ালে গাভিটি হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়ে। তারা না জেনে ওই কুকুরে কামড়ানো গাভির দুধ পান করতে থাকে। বৃহস্পতিবার কুকুরের কামড়ে ৩০ জন অসুস্থ হয়ে পড়ার খবর জানাজানি হলে ওই পরিবারগুলোর সদস্যরা জলাতঙ্কের আশঙ্কায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তারা বিষয়টি আমাকে জানালে আমি প্রায় ৯০ জনকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে নিয়ে আসি।’

গরুর মালিক বেল্লাল শেখ বলেন, ‘বুধবার আমার পোষা গুরুটি গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়লে পশু চিকিৎসককে দেখাই। তিনি গরুটি দেখে কুকুরে কামড়িয়েছে বলে নিশ্চিত হন। তবে কবে কখন, কোথায় গাভিটিকে কুকুরে কামড়েছে, তা জানি না। ‘

বাগেরহাট সদর হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক মন্দির রহমান বলেন, ‘কুকুরে কামড়ানো গরুর দুধ পান করে অসুস্থ হওয়ার আশঙ্কায় নারী-শিশুসহ প্রায় ৯০ জন হাসপাতালে আসেন। আমরা তাঁদের প্রতিষেধক ভ্যাকসিন দিয়েছি। এক মাসের মধ্যে চারটি ভ্যাকসিন নিলেই তাঁরা পুরোপুরি সুস্থ হয়ে যাবেন।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here