‘কবিতা শ্রবণে প্রশান্তি’ শিরোনামে এই প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হলো গারো কবিদের নিয়ে স্বরচিত কবিতা পাঠ ও পাঠ উন্মোচন অনুষ্ঠান।

গারো সাহিত্যে ছোটকাগজ থকবিরিমের আয়োজনে শুক্রবার সকাল ১০টায় রাজধানীর ফার্মগেটে নকমান্দির হলে এ অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। এতে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিথ ছিলেন বিশিষ্ট কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন।

বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসত্ত্বার কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা, কবি ওবায়েদ আকাশ, গারো জাতিসত্ত্বার বিশিষ্ট ব্যক্তি কর্ণেলিউস কামা, লেখক সুমনা চিসিম।

কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, ‘আদিবাসি জনগোষ্ঠী যারা একটি রাষ্ট্রের কালচারাল ডাইভারসিটিকে বৃহত্তর করে তাদের কাছে আমাদের আসতে হবে এবং অনবরত আসাটা তাদের জায়গাটাকে পূর্ণ করে দেয়ার একটি বড় প্রতিজ্ঞাস্বরূপ হতে হবে আমাদেরকে।’

কবি মুহম্মদ নূরুল হুদা বলেন, ‘গারো কবিদের নিজস্ব ভাষায় কবিতা লিখতে হবে, নিজস্ব সংস্কৃতির কথা তুলে ধরতে হবে।’

কবি ওবায়েদ আকাশ বলেন, ‘বাঙালি কবিদের পাশাপাশি গারো কবিরাও ভাল কবিতা লিখছে, তাদের এই উদ্যোগটা খুবই ভাল। এই ধরনের উদ্যোগ গারো সংস্কৃতিকে আরো বেশি সমৃদ্ধ করবে।’

শুভেচ্ছা বক্তব্যে থকবিরিমের উপদেষ্টা থিওফিল নকরেক বলেন, ‘ গারো কবিদের নিয়ে থকবিরিম এই প্রথম এ ধরনের অনুষ্ঠানের আয়োজন করেছে। এই অনুষ্ঠানটি গারো সাহিত্যের জন্য বড় ভূমিকা রাখবে বলে মনে করি।’

স্বরচিত কবিতা পাঠ করেন কবি মতেন্দ্র মানখিন, জেমস জর্নেশ চিরাম, থিওফিল নকরেক, পরাগ রিছিল, লেবিসন স্কু, ব্যঞ্জন মৃ, ফৈবি চিরিং মারাক, সুবর্ণা পলি দ্রং।

মাকে নিয়ে লেখা একজন মুক্তিযোদ্ধার একটি চিঠি আবৃত্তি করেন বাচিক শিল্পী মাহফুজুল হক হদয়। অনুষ্ঠানের সঞ্চালক ছিলেন কবি মিঠুন রাকসাম।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here