ডাকাতি শেষে যে বাড়িতে নারী বা মেয়ে মানুষ থাকে সে বাড়িতেই ধর্ষণ করতো আবুল কাশেম। ব‌রিশা‌ল সদর উপ‌জেলার শা‌য়েস্তাবা‌দে মহানগর গো‌য়েন্দা (ডি‌বি) পু‌লি‌শের সা‌থে বন্ধুকযু‌দ্ধে নিহত যুবকের পরিচয় জানতে গিয়ে এমন চাঞ্চল্যকর তথ্য মিলেছে।

নিহত আবুল কাশেম বরিশালের মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলার শ্রীপুর এলাকার মোহাম্মদ খানের ছেলে।

রোববার (২০ মে) দুপুরে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনারের কার্যালয়ের সভাকক্ষে এক সংবাদ সম্মেলনে অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার মোঃ মাহফুজুর রহমান জানান, নিহত যুবকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় সাতটির মতো ডাকাতির মামলা রয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ডাকাতি করার পাশাপাশি কাশেমের বিশেষ একটি নেশা ছিল, তিনি যে বাড়িতে ডাকাতি করতেন সে বাড়িতে নারী বা মেয়ে মানুষ থাকলে তাদের ধর্ষণও করতেন। বরিশালে বিগত সময়ে বেশ কয়েকটি ডাকাতির ঘটনা ঘটেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যার জের ধরেই পুলিশ ডাকাতচক্রের প্রতি গোপন নজরদারী বৃদ্ধি করে। বেশ কয়েকদিন পূর্বে আগ্নেয়াস্ত্রসহ এক ডাকাতকে গ্রেফতার করা হয়।

এরই ধারাবাহিকতায় রোববার ভোররাতে মহানগর গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের সহকারী কমিশনার নাছির উদ্দিন মল্লিকের নেতৃত্বে শায়েস্তাবাদ এলাকায় টহল প্রদানকালে ডাকাতদলের সদস্যদের সাথে গুলি বিনিময় হয়। এতে ডাকাতদলের কাশেম নিহত হয়। এ ঘটনায় ডিবির এসআই দেলোয়ার হোসেনসহ দুজন কনেস্টাবলও আহত হয়।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here