হলিউড জয় করা ‘কোয়ানটিকো’ খ্যাত অভিনেত্রী প্রিয়াংকা চোপড়া এখন কক্সবাজারের অবস্থান করছেন। ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত হিসেবে বাংলাদেশ সফর করছেন এই বলিউড সুপারস্টার। উদ্দেশ্য রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্প পরিদর্শন। এরই মধ্যে দুইদিন তিনি বিভিন্ন স্থান ও ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন। কথা বলেছেন নির্যাতিতদের সঙ্গে। তবে বেশিরভাগ সময়টা তিনি শিশুদের সঙ্গেই কাটাচ্ছেন।

মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর বর্বরতায় প্রাণ নিয়ে বাংলাদেশে পালিয়ে আসা শরণার্থী শিশুদের সঙ্গে সাধারণ মানুষের মতোই মিশে গেছেন এই গুণী অভিনেত্রী। শিশুরাও আপন করে নিয়েছে তাকে। সোশ্যাল সাইটে নিয়মিতই নিজের কর্মকাণ্ডের আপডেট দিচ্ছেন প্রিয়াংকা। এমনই একটা ভিডিওতে দেখা যায়, বিলাসী জীবনে অভ্যস্ত এ নায়িকা চাটাইয়ে বসেই শিশুদের সঙ্গে লুডু খেলছেন। শিশুদের সঙ্গে কথা বলছেন, তাদের দুঃখ কষ্ট শুনছেন।

এরই মধ্যে ১২ বছর বয়সী শিশু মনসুর আলী প্রিয় নায়িকাকে নিজের হাতা আঁকা একটি চিত্রকর্ম উপহার দিয়েছে। যেখানে ফুটে উঠেছে রোহিঙ্গাদের ওপর সেনাবাহিনীর বর্বরতার গা শিউরে ওঠা চিত্র।

এই শিশুগুলোর ভবিষ্যৎ যাতে নষ্ট না হয় সেজন্য বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন প্রিয়াংকা। একইসঙ্গে বাংলাদেশের এই মানবিক আচরণের প্রশংসা করছেন বারবার।

যে পথ ধরে নির্যাতিত লাখ লাখ রোহিঙ্গা শরণার্থী বাংলাদেশে এসেছে। মঙ্গলবার সেই পথ ধরেই কিছুটা সময় হেঁটে দিন শুরু করেন বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াংকা চোপড়া। সঙ্গীদের সঙ্গে দেখেছেন নাফ নদী আর মিয়ানমার সীমান্ত। শোনেছেন এই পথ ধরে আসা মানুষগুলোর দুঃখ-কষ্টের গল্প।

টেকনাফ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রণজিত কুমার বড়ুয়া জানান, খারিয়া খালী এলাকায় প্রিয়াংকা চোপড়া আসার পর মানুষের ভিড় জমে যায়। এ সময় তিনি স্থানীয় অনেক শিশুর সঙ্গে কথা বলেন। তারা স্কুলে যায় কিনা জানতে চান প্রিয়াংকা। এর পর টেকনাফের লেদা বিজিবি চৌকির কাছে ইউনিসেফ পরিচালিত শিশুদের খেলাধুলার জন্য তৈরি স্থান পরিদর্শন করেন। পরে তিনি টেকনাফ থেকে সরসরি চলে যান উখিয়ার কুতুপালংয়ের এক নম্বর ক্যাম্পে।

কক্সবাজার পুলিশের মুখপাত্র ও অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আফরাজুল হক টুটুল জানান, বলিউড অভিনেত্রী প্রিয়াংকা চোপড়া ইউনিসেফের শুভেচ্ছাদূত হয়ে রোহিঙ্গা শরণার্থী ক্যাম্প পরিদর্শনে আসার খবরটি আগেই ছড়িয়ে যায়। তাকে এক নজর দেখতে উখিয়া টেকনাফে স্থানীয় জনগণ আর রোহিঙ্গারা সড়কে ভিড় করে। বিশেষ করে রোহিঙ্গারা হিন্দি ছবি দেখায় প্রিয়ংকার অনেক ফ্যান রয়েছে।

তাই কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে প্রিয়াংকা ক্যাম্প পরিদর্শন করেছেন। তিনি কুতুপালং ক্যাম্পে রোহিঙ্গা নারী ও শিশুদের সঙ্গে কথা বলছেন। অন্যদিকে প্রিয় অভিনেত্রীকে কাছে পেয়ে আনন্দে মেতে ওঠে রোহিঙ্গা নারী ও শিশু।

**রাজনৈতিক, ধর্মবিদ্বেষী ও খারাপ কমেন্ট করা থেকে বিরত থাকুন।**

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here